"> কাদের মোল্লার মৃত্যু শহীদের সংজ্ঞার মধ্যে পড়ে না: জি এম কাদের
 

কাদের মোল্লার মৃত্যু শহীদের সংজ্ঞার মধ্যে পড়ে না: জি এম কাদের

Pronob paul 3:51 pm রাজনীতি,
Home  »  জাতীয়জাতীয়রাজনীতি   »   কাদের মোল্লার মৃত্যু শহীদের সংজ্ঞার মধ্যে পড়ে না: জি এম কাদের

অধিকার ডেস্ক :: জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জি এম) কাদের বলেছেন, ‘শহীদের একটা সংজ্ঞা আছে। কাদের মোল্লার মৃত্যু এই সংজ্ঞার মধ্যে পড়ে বলে মনে করি না।’

আজ শনিবার সকালে নগরীর মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করার পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জি এম কাদের এ কথা বলেন।

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর জামায়াতে ইসলামীর নেতা কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর করা হয়। তাঁকে ‘শহীদ’ উল্লেখ করে গত বৃহস্পতিবার সংগ্রাম পত্রিকার প্রথম পাতায় একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে জি এম কাদের বলেন, ‘যুদ্ধাপরাধের দায়ে ফাঁসিতে দণ্ডিত আবদুল কাদের মোল্লাকে শহীদ আখ্যা দিয়ে দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকাটি ঠিক করেনি। কাদের মোল্লাকে শহীদ বলাটা সমর্থনযোগ্য নয়। আমরা এর প্রতিবাদ করছি।’

সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতা কাদের বলেন, জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে বাঙালি জাতিকে মেধাশূন্য করতে চেয়েছিল। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সেই ষড়যন্ত্র সফল হয়নি।

জি এম কাদের বলেন, যাঁরা দেশ মাতৃকার জন্য জীবনের সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করেছেন, ‘তাঁদের স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে দেশকে আরও এগিয়ে নিতে হবে। আমরা বাংলাদেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাব।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান কাদের বলেন, দৈনিক সংগ্রাম-এর ডিক্লারেশন বাতিলের বিষয়টি একান্তই সরকারের ব্যাপার।

শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান, প্রেসিডিয়াম সদস্য এস এম ফয়সল চিশতী, আলমগীর সিকদার, নাজমা আখতার , উপদেষ্টা রওশন আরা মান্নান, ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইকবাল হোসেন, নুরুল ইসলাম প্রমুখ।

কাদের মোল্লাকে ‘শহীদ’ আখ্যায়িত করায় গতকাল শুক্রবার রাজধানীর মগবাজারে দৈনিক সংগ্রাম কার্যালয়ে ভাঙচুর হয়। মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসি কার্যকর হওয়া জামায়াত নেতা আবদুল কাদের মোল্লাকে ‘শহীদ’ উল্লেখ করে প্রতিবেদন প্রকাশ করায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একদল নেতা-কর্মী শুক্রবার সন্ধ্যায় সংগ্রাম কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন করেন। এ সময় একদল যুবক পত্রিকাটির কার্যালয়ে ঢুকে বিভিন্ন কক্ষ ভাঙচুর করেন।