"> জাবি উপাচার্যের অপসারণ ও অনিক রায়ের উপর মামলা প্রত্যাহার দাবি ছাত্র জোটের
 

জাবি উপাচার্যের অপসারণ ও অনিক রায়ের উপর মামলা প্রত্যাহার দাবি ছাত্র জোটের

Pronob paul 2:34 pm সংগঠন সংবাদ,
Home  »  ক্যাম্পাসজাতীয়জাতীয়জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়রাজনীতিসংগঠন সংবাদ   »   জাবি উপাচার্যের অপসারণ ও অনিক রায়ের উপর মামলা প্রত্যাহার দাবি ছাত্র জোটের

নিজস্ব প্রতিবেদক :: দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত জাবি উপাচার্য ফারজানা ইসলামের অপসারণ ও আন্দোলনকারীদের উপর ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী হামলার বিচার,ছাত্র জোট নেতা অনিক রায়ের উপর হামলার বিচার ও হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি বন্ধের অগণতান্ত্রিক প্রজ্ঞাপন বাতিল করার দাবিতে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মিছিল-সমাবেশ।

আজ রবিবার ( ৮ ডিসেম্বর) প্রগতিশীল ছাত্র জোটের পক্ষ থেকে জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ফারজানা ইসলামের অপসারণ ও ছাত্রলীগের হামলার বিচার,ছাত্র জোট নেতা অনিক রায়ের মামলা প্রত্যাহার এবং বুয়েটে অগণতান্ত্রিক প্রজ্ঞাপনের বাতিলের দাবিতে সমাবেশ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

বিকাল ৪ টায় শাহবাগে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন প্রগতিশীল ছাত্র জোটের কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী আল কাদেরী জয়। বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি মেহেদী হাসান নোবেল, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সভাপতি মাসুদ রানা, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি ইকবাল কবির। সভা পরিচালনা করেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন প্রিন্স।

সমাবেশে বক্তারা বলেন -“এক চরম স্বৈরাচারী ও দুঃশাসনের মাঝে আজ দেশের মানুষ রয়েছে। এর সাথে যুক্ত হয়েছে ক্ষমতাসীনদের সীমাহীন দুর্নীতি ও দখলদাারিত্ব। এই দুর্নীতির অপকর্ম ঢাকতে জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান আন্দোলনে প্রশাসনের মদদে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয় এবং আন্দোলন বানচাল করার জন্য পরর্বতীতে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হয়। একইভাবে বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যার জের ধরে সরকারদলীয় ছাত্র সংগঠনের নির্যাতন- নিপীড়নের দায়ভার ছাত্র রাজনীতির উপর চাপিয়ে বুয়েটকে আরো বেশি বদ্ধ ও অগণতান্ত্রিক ক্যাম্পাসে পরিনত করার প্রচেষ্টা চালানো হয়েছে। এই সবই সরকারের অগণতান্ত্রিক চেহারার বহিঃপ্রকাশ মাত্র। তারই নজীর দেখা যায় শান্তিনগরে ছাত্র জোট নেতা ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অনিক রায়ের উপর হামলা ও মামলার ঘটনায়।
এভাবে সরকার জনগণের স্বার্থ ও আকাঙ্ক্ষার বিপরীতে দাঁড়িয়ে দেশ পরিচালনা করছে। অন্যদিকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের কিংবা শুদ্ধি অভিযানের মতন চটকদারী কথা বলে জনগণকে বিভ্রান্ত করতে চায়ছে।

আজ তাই এই দুর্নীতি দুঃশাসনের বিরুদ্ধে ছাত্র জনতার ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ের বিকল্প নেই। “

সমাবেশের পূর্বে এই দাবিসমূহের সমর্থনে টিএসসি থেকে একটা প্রতিবাদী মিছিল অনুষ্ঠিত হয় ।