"> মিছিলে পুলিশ ও ছাত্রলীগের হামলার বিচার দাবিতে জবিতে ছাত্রফ্রন্টের সমাবেশ
 

মিছিলে পুলিশ ও ছাত্রলীগের হামলার বিচার দাবিতে জবিতে ছাত্রফ্রন্টের সমাবেশ

Pronob paul 3:30 pm সারা দেশ,
Home  »  ক্যাম্পাসজগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়সারা দেশ   »   মিছিলে পুলিশ ও ছাত্রলীগের হামলার বিচার দাবিতে জবিতে ছাত্রফ্রন্টের সমাবেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক :: পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে গত ২২ নভেম্বর (শুক্রবার) বাসদের বিক্ষোভে পুলিশ ও ছাত্রলীগ কর্তৃক নারী শিক্ষার্থী লাঞ্ছনার বিচার দাবিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার প্রতিবাদী ছাত্র সমাবেশ আজ বেলা ১ টায় ভাস্কর্য চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারন সম্পাদক তানজিম সাকিবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছাত্রনেতা সুস্মিতা মরিয়ম, জগুনাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রফ্রন্টের সাবেক সভাপতি ছাত্রনেতা মুজাহিদ অনিক, জবি ছাত্রফ্রন্টেড় সহসভাপতি সুমাইয়া ইসলাম সোমা, ছাত্র ইউনিয়ন জবি শাখার সাবেক সভাপতি ছাত্রনেতা রুহুল আমিন। অনুষ্ঠিত সমাবেশে সংহতি বক্তব্য বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নে, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ পুলিশ কর্তৃক এহেনও হামলার নিন্দা জানান।

ছাত্রফ্রন্টের সাবেক সভাপতি মুজাহিদ অনিক বলেন, “বাংলাদেশের পেঁয়াজ বাজার নিয়ন্ত্রণ করে খাতুনগঞ্জের ৩৮ জন পেঁয়াজ ব্যবসায়ীর সিন্ডিকেট। অথচ আজ সরকার তাদের কিছু বলছে না।আর আমরা প্রতিবাদ মিছিল করলে সেখানে পুলিশ ও ছাত্রলীগ লেলিয়ে দিয়ে হামলা করেছে।আমরা এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।”

তিনি আরও বলেন, “জবির ভিসি বলেছিল ডাকসু নির্বাচনের পরই জকসু নির্বাচন দেয়া হবে।কিন্তু এখনও নির্বাচন দেয়ার কোনো দৃশ্যমান পদক্ষেপ তারা নিচ্ছে না।”

সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন জবি ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন।তিনি বলেন, “আজ জবির নতুন ক্যাম্পাসের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে।অথচ ২০১৬ সালে হল আন্দোলনের পর কয়েক সপ্তাহের মধ্যে নতুন ক্যাম্পাস ও হলের কাজ শুরুর আশ্বাস দেয়া হয়েছিল।সেই কাজ শুরু করতে আজ তারা ৩ বছর লাগিয়েছে।আর, আজ নতুন ক্যাম্পাস প্রকল্পের ক্রেডিট নিতে চান বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ও কেরানীগঞ্জের এমপি।অথচ তাদের কোনো অবদান নেই। এই নতুন ক্যাম্পাস জবির সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের আন্দোলনের ফসল।

জানা যায় ২২ নভেম্বর (শুক্রবার) পুলিশ ও ছাত্রলীগ যৌথভাবে হামলায় বাসদের ছাত্র সংগঠন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার ২ জন নারী নেত্রীসহ কয়েকজন আহত হন। এ সময় পুলিশ কয়েকটি মোবাইল ফোনও ছিনিয়ে নিয়ে যায়।