বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:৫৩ অপরাহ্ন


বাবার বাড়ি শ্বশুরের নামে লিখে না দেয়ায় গৃহবধূকে চুল কেটে নির্যাতন

বাবার বাড়ি শ্বশুরের নামে লিখে না দেয়ায় গৃহবধূকে চুল কেটে নির্যাতন

  • 6
    Shares

অধিকার ডেস্ক:: যৌতুক হিসেবে বাবার বাড়ি শ্বশুরের নামে লিখে না দেয়ায় সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় নার্গিস খাতুন (৩০) নামে এক গৃহবধূকে শারীরিক নির্যাতনের পর মাথার চুল কেটে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আহত অবস্থায় ওই গৃহবধূকে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নার্গিস খাতুন শ্বশুর ও তার স্বজনদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেন। এ সময় তার পাশে স্বামী শফিকুল ইসলামও উপস্থিত ছিলেন। নার্গিস খাতুন উল্লাপাড়া উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের মহেশপুর গ্রামের ইব্রাহিমের মেয়ে ও একই গ্রামের শফিকুল ইসলামের স্ত্রী।

এ দম্পতি অভিযোগ করে বলেন, প্রায় ১১ বছর আগে ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন তারা। স্বামী শফিকুলের ইচ্ছা না থাকলেও শ্বশুর হাবিবুর রহমান, ভাসুর জামাল ও শাহাদত যৌতুকের জন্য গৃহবধূ ও তার পরিবারকে চাপ প্রয়োগ করে।

যৌতুক দিতে অস্বীকার করায় প্রায়ই তাকে নির্যাতন সইতে হতো। রোববার রাতে যৌতুক হিসেবে বাবার বাড়িটি লিখে দেবার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন শ্বশুরসহ তার স্বজনরা।

অস্বীকার করায় শ্বশুর হবিবর রহমান ও দুই জা-সহ বাড়ির অন্যরা তাকে মারপিট করে। এক পর্যায়ে বটি ও দা দিয়ে নারগিসের চুল কেটে দেয়া হয়।

নারগিসের স্বামী শফিকুল ইসলাম বলেন, ভালোবেসে নিজের পছন্দের মেয়েকে বিয়ে করার কারণেই তার বাবা তার ওপর ক্ষুব্ধ। এ কারণে তাদের ওপর প্রায়ই নির্যাতন চালায় বাবাসহ পরিবারের অন্যরা।

এ বিষয়ে উধুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল বলেন, নারগিসের শ্বশুরবাড়ির পাশে বাবা ইব্রাহিমের একটি বাড়ি রয়েছে। যৌতুক হিসেবে সেটি লিখে দেয়ার জন্য দীর্ঘদিন ধরেই চাপ প্রয়োগ করছে হাবিবুর রহমান। বাড়িটি লিখে না দেয়ায় মাঝে মধ্যেই নারগিস ও তার স্বামী নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। এমনকি নিজের ছেলের বিরুদ্ধে ডাকাতির মামলাও দায়ের করেছিলেন হাবিবুর। এসব বিষয় নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে বৈঠকও হয়েছে। কিন্তু হাবিবুর কোনো বিচার মানেন না।

এ ঘটনায় উল্লাপাড়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপক কুমার দাস বলেন, আমরা গৃহবধূ নির্যাতনের বিষয়টি জানতে পেরেছি। তবে এখন পর্যন্ত থানায় কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। ওই গৃহবধূ হাসপাতালে রয়েছেন বলে জেনেছি। তিনি সুস্থ হয়ে ফিরে এসে অভিযোগ করলে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।





© All rights reserved © 2018 Odhikarbd.Com
ILoveYouZannath