মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১৯

৫ দাবিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিকের সমাবেশ

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 11
    Shares

অধিকার ডেস্ক:: পৌর এলাকাসহ এর আশপাশের এলাকার রিক্সাচালকদের লাইসেন্স ও চলাচলের অধিকার দেওয়াসহ ৫ (পাঁচ) দফা দাবিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে জেলা রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ।

মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) রাত ৮টায় রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের উদ্যোগে শহরের মেড্ডা পাসপোর্ট অফিসের পাশে শ্রমিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশ থেকে দাবি আদায়ের লক্ষ্যে ৬ই ডিসেম্বর থেকে অবস্থান কর্মসূচি পালন করার ঘোষণা দেওয়া হয়।

শহরের যানজটের জন্য রিক্সা শ্রমিক দায়ী নয়। অপরিকল্পিত ভাবে শহর গড়ে উঠা, প্রয়োজনীয় রাস্তাঘাট না থাকা, যত্রতত্র সময়ে ট্রাকসহ ভারী পরিবহন শহরে প্রবেশ করাই যানজটের প্রধান কারণ বলে নেতৃবৃন্দ মত প্রকাশ করেন।

লাইসেন্স এর নামে তিন হাজার রিক্সার লাইসেন্স না দেওয়ার সিদ্ধান্তকে গণবিরোধী আখ্যা দিয়ে নেতৃবৃন্দ বলেন, একটি স্বাধীন দেশে জেলা প্রশাসন ও পৌরসভা কোন বিকল্প কর্মসংস্থান না করে মানুষের কাজ বন্ধ করতে পারেন না।

রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের সভাপতি ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাজিদুল ইসলাম, সহ-সাধারণ সম্পাদক কমরেড আছমা খানম, সম্পাদক কমরেড অ্যাড. সৈয়দ মোঃ জামাল, পার্টির জেলা কমিটির সদস্য কমরেড অসিত রঞ্জন পাল, শ্রমিকনেতা আল-মামুন, উদীচীর জেলা সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস রহমান, ২ নং ওয়ার্ডের সহ-সভাপতি নাজমুল ইসলাম দারু মিয়া, সাধারণ সম্পাদক রুহেল খান, ১১ ও ১২নং ওয়ার্ডের সহ-সভাপতি মোঃ দুলাল মিয়া, ১ নং ওয়ার্ডের সভাপতি শিশু মিয়া, সাধারণ সম্পাদক সজিব মিয়া ও ইজি বাইক আন্দোলনের নেতা আনিসুর রহমান প্রমুখ।

সভায় নেতৃবৃন্দ ৫ (পাঁচ) দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আগামী ৬ই ডিসেম্বর বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত পৌরসভা প্রাঙ্গণে অবস্থান কর্মসূচি সফল করার জন্য রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিকসহ সর্বস্তরের মানুষের নিকট আহ্বান জানান।

রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের ৫ (পাঁচ) দফা দাবিসমূহ হল- পৌর এলাকাসহ এর আশপাশের এলাকার রিক্সাচালকদের লাইসেন্স ও চলাচলের অধিকার দিতে হবে; পৌরসভা কর্তৃক ব্যাটারিচালিত রিক্সার লাইসেন্স ফি পাঁচশো টাকা, পায়েচালিত রিক্সার লাইসেন্স ফি ৫০ টাকা এবং রিক্সার লাইসেন্স ফি দুইশো টাকা করতে হবে; প্রত্যেক জনবহুল এলাকায় রিক্সা শ্রমিকদের স্ট্যান্ড স্থাপন করতে হবে। শহরের যানজট নিরসনের জন্যে মৌলভীপাড়া-পুনিয়াউট বাসষ্ট্যান্ড পর্যন্ত রাস্তা প্রশস্ত ও মেড্ডা থেকে জাদুঘর পর্যন্ত তিতাস নদীর পাড় দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করতে হবে; জাতীয় ইমারত নীতি মেনে সকল ইমারত নির্মাণ করতে হবে এবং সকাল ৯টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত শহরে ট্রাকসহ ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ করতে হবে।

 


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 11
    Shares