মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১৯

১১ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে বগুড়ায় বাম জোটের বিক্ষোভ

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 43
    Shares

বগুড়া প্রতিনিধি:: বাজেটে কমপক্ষে ২০% স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ করা, প্রত্যেক জেলা-উপজেলায় করোনা পরীক্ষার ল্যাব স্থাপন করে উপজেলায় ২০০, জেলায় ৫০০ এবং সারাদেশে প্রতিদিন কমপক্ষে ৫০ হাজার করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা করাসহ ১১ দফা দাবিতে বগুড়ায় সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত।

১১ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে বাম গণতান্ত্রিক জোট বগুড়ার উদ্যোগে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে আজ ২১ জুন ২০২০ রবিবার সকাল ১১ টায় জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাম গণতান্ত্রিক জোট বগুড়া জেলা সমন্বয়ক জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না।

বক্তব্য রাখেন বাসদ জেলা আহ্বায়ক অ্যাড. সাইফুল ইসলাম পল্টু, সিপিবি জেলা সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ফরিদ, বাসদ জেলা সদস্য সচিব সাইফুজ্জামান টুটুল, সিপিবি জেলা নেতা সন্তোষ পাল, বাসদ জেলা সদস্য শহিদুল ইসলাম, যুব ইউনিয়ন জেলা সভাপতি সাজেদুর রহমান ঝিলাম প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশ এখন এশিয়ার মধ্যে তৃতীয়। সংক্রমণ ও মৃত্যুর দিক থেকে ভারত ও পাকিস্তানের পরেই রয়েছে বাংলাদেশ। পরিসংখ্যান থেকে দেখা যাচ্ছে সাধারণ ছুটি প্রত্যাহারের পর ২০ দিনে আগের ৬৬ দিনের রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। এই ২০ দিনে আক্রান্ত হয়েছেন ৬১ হাজার ৬২১ জন। এর আগে আক্রান্ত হয়েছিলেন ৪৭ হাজার ১৫৬ জন। পহেলা জুন থেকে ২০শে জুন পর্যন্ত মারা গেছেন ৭৭৫ জন। ছুটিকালীন সময়ে মারা যান ৬৫০ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ৩ হাজার ২৪০ জন আক্রান্ত হয়েছেন। সব মিলিয়ে আক্রান্ত হলেন ১ লাখ ৮ হাজার ৭৭৫ জন। স্বাস্থ্য দপ্তরের সর্বশেষ খবরে ৩৭ জনের মৃত্যুর তথ্য রয়েছে। এ পর্যন্ত মারা গেছেন ১ হাজার ৪২৫ জন। অন্যদিকে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ১ হাজার ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ এক প্রতিবেদনে এই তথ্য প্রকাশ করেছে।

গত আট দিনে (১০ জুন থেকে ১৭ জুন) করোনায় আক্রান্ত হয়ে এবং করোনার উপসর্গ নিয়ে ১২ চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) তথ্য অনুযায়ী করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে ও উপসর্গ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত ৪১ চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে।

অন্যদিকে বগুড়ায় প্রায় ৩০ লক্ষ মানুষের বিপরীতে গতকালের সিভিল সার্জনের কার্যালয় এর তথ্য অনুযায়ী এ পর্যন্ত নমুনা সংগ্রহ হয়েছে মাত্র ১৩ হাজার ৮ শত ৮০ জনের যার মধ্যে ফলাফল পাওয়া গিয়েছে মাত্র ১১ হাজার ৬ শত ৮৪ জনের। এর মধ্যে জেলায় শনাক্ত হওয়া করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ১ হাজার ৯৮৫ জনে। এ ছাড়া ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এখন পর্যন্ত জেলায় করোনায় মৃতের সংখ্যা ২৯ জন।

গত শুক্রবার বগুড়ায় করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে সরকারি মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল থেকে বেসরকারি টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয় এক আইনজীবীর সহকারীর।

এই ঘটনা প্রমাণ করে আমাদের সরকারি হাসপাতালের সক্ষমতা! যেখানে সরকারি হাসপাতাল থেকে রোগী বেসরকারী হাসপাতালে প্রেরণ করতে হয়। তাই নেতৃবৃন্দ সমাবেশ থেকে দাবি তুলেন সাধারণ মানুষের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে হলে অবশ্যই সরকারী উদ্যোগ বৃদ্ধি করতে হবে, টেস্ট বৃদ্ধি করতে হবে। নেতৃবৃন্দ সরকারি উদ্যোগ বৃদ্ধি করতে বাজেটের ২০% স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দসহ উপরোক্ত ১১ দফা দাবি বাস্তবায়ন করার দাবি জানান।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 43
    Shares