Home সারা দেশ হবিগঞ্জের রেমা বাগান বন্ধ থাকায় অনাহারে দিন কাটাচ্ছে ৫০০ চা শ্রমিক

হবিগঞ্জের রেমা বাগান বন্ধ থাকায় অনাহারে দিন কাটাচ্ছে ৫০০ চা শ্রমিক

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি:: হবিগঞ্জের রেমা চা বাগানের শ্রমিদের বিভিন্ন বকেয়া ৫০০০ টাকা ও বাগানের ব্যবস্থাপক কর্তৃক খেলার মাঠ দখল করে চারা লাগানোর বিবাদকে কেন্দ্র করে গত ৪ মার্চ থেকে হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার রেমা চা বাগান বন্ধ। আজ ২০ দিন ধরে রেমা চা বাগানের পাঁচশতাধিক চা শ্রমিকের কাজ নেই, মজুরি নেই। তারা অনাহারে দিন কাটাচ্ছে।

জানা যায়, দীর্ঘদিন থেকে রেমা চা বাগানের মালিকদের বিরুদ্ধে শ্রমিক শোষণ-নিপীড়নের অভিযোগ রয়েছে। এরিয়ারে টাকা এবং উৎসব ভাতা বাবদ প্রায় প্রতিটি শ্রমিকের ৫০০০ টাকা করে বকেয়া রয়েছে বাগান কর্তৃপক্ষের কাছে। এরই মধ্যে গত ৪ মার্চ, চা শ্রমিকদের খেলার মাঠ দখল করে বাগান ব্যবস্থাপক চারা গাছ রোপণ করতে উদ্যত হলে চা শ্রমিকদের সঙ্গে তার বিরোধ হয়। এই বিরোধের জের ধরে বাগান ব্যবস্থাপক চুনারুঘাট থানায় অভিযোগ করলে ৫ মার্চ পুলিশ তদন্ত করতে বাগানে আসে। এতে ক্ষেপে যায় শ্রমিকরা। এরপর ৬ মার্চ বাগান ব্যবস্থাপক দিলীপ সরকার সাথে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে শ্রমিকদের সাথে এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ঘটে। যিনি বাগানের রেমা চা বাগান সিকিউরিটি সুপার ভাইজার জলিল মেম্বার বাহির থেকে সন্ত্রাসী নিয়ে শ্রমিকদের মারদোর করেন।

এ ঘটনায় বাগানের সাবেক পঞ্চায়েত মানিক দাস ও ইউপি সদস্য নির্মল দেবসহ ২৫ জনকে আসামি করে বাগান কর্তৃপক্ষ মামলা দায়ের করেন এবং একইসাথে বাগান বন্ধ করে দিয়ে তালা দিয়ে চলে যান।

গত ৮ মার্চ, শ্রমিকদের খেলার মাঠ দখল, বকেয়া বেতন ও মামলা দিয়ে হয়রানি বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন চা শ্রমিকরা। ওইদিন সকালে রেমা চা বাগান থেকে প্রায় ১৫ মাইল রাস্তা হেঁটে উপজেলা সদরে এসে এ বিক্ষোভ করেন তারা। বিক্ষোভে অংশ নেন ছয় শতাধিক বিভিন্ন বাগানের চা শ্রমিক নারী-পুরুষ। বিক্ষোভ শেষে চা শ্রমিকরা উপজেলা পরিষদ এলাকায় অবস্থান নিলে চুনারুঘাট থানার ওসি শেখ নাজমুল হক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমান মহালদারসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ তাদের বিষয়টি বাগান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে সমাধান করার আশ্বাস দেন এবং ফিরে যেতে বলেন। কিন্তু ২৩ মার্চ পর্যন্ত চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং জেলা প্রশাসক বাগান মালিকের সঙ্গে কোন আলোচনায় বসতে পারেনি।

হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান এর মতে, ‘বিষয়টি সমাধানের জন্য আমরা চেষ্টা করছি। যেহেতু বাগানটি বেসরকারী এবং মালিক পক্ষ আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে তাই তাদেরকে বোঝাতে একটু সময় লাগছে।’

এদিকে ৩ সপ্তাহ ধরে বাগানের চা শ্রমিকদের কাজ নেই, হাজিরা নেই, রেশন নেই। দেশের জাতীয় দুর্যোগ করোনার সময়ে নিরাপত্তার কথা ভেবে চা শ্রমিকরা আন্দোলন, মিছিল, সমাবেশ করতে পারছে না। বাগান বন্ধের পরপরই স্থানীয় বাগান পঞ্চায়েত থেকে কিছু চাল দেওয়া হয়েছিল শ্রমিক পরিবারগুলিকে, কিন্তু সেসব পর্যাপ্ত ছিল না। শ্রমিকদের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে জেলা প্রশাসক তিন টন চাল বরাদ্ধ করেছেন, কিন্তু সেই সাহায্য এখনো শ্রমিকদের হাতে এসে পৌঁছায়নি।

চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল জানিয়েন, ২৪ মার্চের মধ্যে বন্ধ বাগান চালু করতে হবে। সমাধান না হলে ২৩টি চা বাগান একযোগে যেকোন কর্মসূচি গ্রহন করবে। কিন্তু ২৪ মার্চ বাগানের শ্রমিকদের তথ্য থেকে জানা যায় বাগান খোলা হয়নি এবং খুব শীঘ্রই খোলার কোন সম্ভাবনাও দেখা যাচ্ছে না।

তবে কি রেমা চা বাগানের ৫০০ জন চা শ্রমিক অনাহারে দিন কাটাবে? স্থানীয় সূত্রমতে, বাগানের বয়স্ক শ্রমিকদের কিছু অংশ ভয়াবহ অসুস্থ হয়ে পড়ছে। কিন্তু তা নিয়ে বাগান কর্তৃপক্ষ কোন ধরণের ব্যবস্থাই নিচ্ছে না।

রেমা চা বাগানের আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত চা শ্রমিক নেতা মনিব কর্মকার জানান, রেমা বাগানের সকল চা শ্রমিককে ন্যুনতম বাঁচিয়ে রাখার জন্য এখন প্রচুর পরিমাণে খাবার দরকার। কিন্তু বাগানের সকল শ্রমিকদের সমষ্টিগতভাবেও সামর্থ্য নেই এই খাবার যোগান দেওয়ার। তাই মনিব করোনার সময়কে মাথায় রেখেই সারা দেশের প্রগতিশীল সমাজকর্মী এবং রাজনৈতিক কর্মীদেরকে রেমা চা বাগানের শ্রমিকদের পাশে দাঁড়াতে অনুরোধ করেছেন।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ফেডারেশন রেমা চা বাগান সভাপতি ও রেমা চা বাগানে আন্দোলনের নেতা অরুণ দাস পানিকা জানান, করোনা পরিস্থিতির কারণে সরকারি বিধি-নিষেধ থাকায় তারা অনাহারে দিন কাটালেও আপাদত তাদের আন্দোলন কর্মসূচি ৩১ মার্চ পর্যন্ত স্থগিত রেখেছেন। এর মধ্যে রেমা বাগানের শ্রমিকদের দাবি না মানলে পরবর্তীতে ২৩ বাগানের শ্রমিকদের নিয়ে কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলবেন তারা।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ

করোনা আক্রান্ত দ্রুত বাড়ছে বাংলাদেশে, ঘরে থাকার বিকল্প নেই

অধিকার ডেস্ক:: দেশে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। কয়েকদিন ধরে আক্রান্তের সংখ্যা জ্যামিতিক হারে বাড়ছে। এ নিয়ে দেশজুড়ে তৈরি হয়েছে উদ্বেগ।...

করোনা আতঙ্কে এগিয়ে আসেনি কেউ, বাবার লাশ কাঁধে নিল চার কন্যা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: করোনা ঠেকাতে ভারতজুড়ে চলছে লকডাউন। প্রতি মুহূর্তে বলা হচ্ছে, বাঁচতে হলে একমাত্র অস্ত্র সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। আর সেই সামাজিক...

মৌলভীবাজারে মৃত ব্যক্তির করোনা শনাক্ত, গ্রাম লকডাউ

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের রাজনগরে জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তির নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। মৌলভীবাজারের সিভিল সার্জন এই তথ্যের...

করোনার সময়ে একদিনে ব্যাংকে এলেন আড়াই হাজার গ্রাহক

অধিকার ডেস্ক:: টাঙ্গাইলের ব্যাংকগুলোতেও ব্যাপক জনসমাগম। সামাজিক দূরত্বের ধার ধারছে না তারা। রোববার সকাল থেকে এমন চিত্র দেখা গেছে সোনালী ব্যাংক টাঙ্গাইল...