বুধবার, জানুয়ারি ২৭

স্বীকৃতি দাবিতে স্বামীর বাড়িতে স্ত্রীর আমরণ অনশন

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 6
    Shares

এনামুল কবির মুন্না, দোয়ারাবাজার প্রতিনিধিঃ দোয়ারাবাজারে স্ত্রীর স্বীকৃতি চেয়ে প্রেমিক স্বামীর বাড়িতে আমরণ অনশন করছে একজন নারী। শুক্রবার সকাল ১২ টা থেকে অনশন শুরু করেছেন তিনি। ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্বামী পুলিশ কনস্টেবল সফিকুলের নিজ বসত বাড়িতে হাজার হাজার উৎসুক জনতা (নারী পুরুষ) ভীড় জমিয়েছে।

জানা গেছে, দিরাই উপজেলার উদয় পুর ভাটি পাড়া গ্রামের মৃত হাবিবুর রহমানের মেয়ে রিনা আক্তার(২২)। দোয়ারবাজার উপজেলার লক্ষীপুর ইউনিয়নের রসরাই গ্রামের আব্দুল আলীর ছেলে পুলিশ কনস্টেবল শফিকুল ইসলামের (২৫) মধ্যে ফেসবুকে পরিচয়ের সুবাদে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। সম্পর্ক এক পর্যায়ে দুজনের সম্মতিতে সুনামগঞ্জ জামতলা কাজী অফিসে ৩ লাখ টাকা দেনমোহরে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয় তারা। কাবিন নামা অনুযায়ী ০৯-০২-২০২০ ইং তারিখে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের ৮ মাস সংসার ও মেলামেশা করলেও পরে শফিকুল ইসলাম আর কোন খোজঁ খবর নেয়না বা স্ত্রীর স্বীকৃতি বা মর্যাদা দিতে অস্বীকার করে। তাই স্বামীর বাড়িতে রিনা আসলে তাকে মারপিট ও তার সাথে থাকা মোবাইল ফোন ব্যাগ ভর্তি কাপর, ও নগদ টাকা হাতিয়ে নেয়। স্বামীর বড় ভাই হাবিব মিয়া।

ভুক্তভোগী ওই নারী জানান, আমার সাথে ফেইসবুকে পরিচয় হয়।লেখাপড়া চলাকালীন অবস্থায় দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে।গত ৮ মাস যাবত সে আমার কোন খোঁজ খবর নেয়না। আমি গোপনে জানতে পেরেছি, শফিকুল ইসলাম আমাকে ছেড়ে বিয়ে করার জন্য মেয়ে দেখছে। উপায়ন্তর না পেয়ে আমি স্ত্রীর দাবিতে শফিকুলের বাড়িতে আমরণ অনশন করবো। আমাকে হয় মেনে নেবে নয়তবা আমি মৃত্যুবরণ করবো।

এ ব্যাপারে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে শফিকুল ইসলাম বলে আমাকে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, আমরা সকাল থেকে দেখছি, একটি মেয়ে শফিকুল ইসলামের বাড়িতে সামনে স্ত্রীর স্বীকৃতি পেতে সকাল থেকে অবস্থান করছে। গ্রামের হাজার হাজার মানুষ বিষয়টি জানতে ভীড় জমাচ্ছে।

দোয়ারাবাজার থানার ওসি মোহাম্মদ নাজির আলম জানান, ঘটনাটি আমি শুনেছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 6
    Shares