শুক্রবার, নভেম্বর ২৭

‘স্বাধীনতাবিরোধীরা দেশের সর্বোচ্চ সুবিধা নিয়েও ষড়যন্ত্রে লিপ্ত’

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক:: স্বাধীন দেশে বসবাস এবং দেশের সর্বোচ্চ সকল সুযোগ-সুবিধা নিয়েও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি ও স্বাধীনতাবিরোধীরা দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) সচিবালয় থেকে বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক অনলাইনে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হওয়ার মাত্র সাড়ে তিন বছরের মধ্যেই বঙ্গবন্ধু যে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধন করেছিলেন, তা অব্যাহত থাকলে অনেক আগেই বাংলাদেশ উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলায় রূপান্তরিত হতো।

জেনারেল জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর হত্যার সাথে সরাসরি যুক্ত থেকে খুনিদের উৎসাহিত করেছেন উল্লেখ করে তাজুল ইসলাম বলেন, জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশের সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধা দিয়ে পুরস্কৃত করেছেন। লাল-সবুজের পতাকাকে কলুষিত করেছেন এবং পাকিস্তানপ্রেমীদের দেশে আসার সুযোগ করে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করেছেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে বাঙালিরা যেমন জীবন বাজি রেখে দেশ স্বাধীন করেছেন, ঠিক তেমনিভাবে শেখ হাসিনার ডাকে সাড়া দিয়ে পুরো জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণ করবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এক ও অভিন্ন। বাংলাদেশের কথা বলতে গিয়ে অনিবার্যভাবে এসে যায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম। যিনি দেশের ও জনগণের স্বার্থের জন্য নিজের স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়েছিলেন। কিশোর বয়স থেকেই প্রতিবাদী ছিলেন। সর্বদা সত্য ও ন্যায়ের কথা বলেছেন।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে সভায় গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। এছাড়া পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিব মো. রেজাউল আহসান, মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং মাঠ পর্যায়ের বিভিন্ন দফতর/সংস্থার প্রধান ও স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিরা অনলাইন সভায় যুক্ত ছিলেন।


এখানে শেয়ার বোতাম