বুধবার, নভেম্বর ২৫

সেপটিক ট্যাংকে নেমে শিক্ষকসহ ৩ জনের মৃত্যু

এখানে শেয়ার বোতাম

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:: সাতক্ষীরার আশাশুনিতে সেপটিক ট্যাংক পরিষ্কার করতে গিয়ে এক শিক্ষকসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার পুঁইজালা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মৃত ব্যক্তিরা হলেন- উপজেলার শ্রীউলা ইউনিয়নের পুঁইজালা গ্রামের লক্ষীকান্ত সানার ছেলে ও পুঁইজালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জগদীশ সানা (৫৬), একই গ্রামের পরিমল সানার ছেলে তপন কুমার সানা (৪০) ও সোনা দাসের ছেলে সুইপার মদন দাস (৩০)।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. হিসাম আল কবির জানান, আশাশুনির তিনজন ট্যাংকের ভেতর নামেন পরিষ্কার করার জন্য। ভেতরে বাতাসে অক্সিজেন কমে যাওয়ায় নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে একে একে তিনজনই মারা যান। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় একে বলে এসফেকশিয়া। হাসপাতালে নিয়ে এলে তিনজনকেই মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়।

শিক্ষক জগদীশ সানার ছেলে চন্দন সানা জানান, সেপটিক ট্যাংক পরিষ্কারের জন্য সুইপার মদন দাস সকাল ৯টা থেকে কাজ শুরু করেন। পরে তার কোনো সাড়া না পাওয়ায় জগদীশ সানা সেপটিক ট্যাংকের ভেতরে দেখতে থাকেন। এরপর বাবার কোনো সাড়া না পাওয়ায় তার চাচাতো ভাই তপন সানা সেপটিক ট্যাংকের ভেতর মুখ ঢোকান।

কিছুক্ষণ পর তারও কোনো সাড়া না মেলায় পরে তারা জানতে পারেন ট্যাংকের ভেতর বাতাসে অক্সিজের কমে যাওয়ায় নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে একে একে তিনজনই মুমূর্ষু অবস্থায় সেখানে অবস্থান করছেন। দ্রুত তাদেরকে উদ্ধার করে স্থানীয় চিকিৎসক বিধান মন্ডলের কাছ থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে দুপুর একটার দিকে সাতক্ষীরার সদর হাসপাতালে আনার পর সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে, একই সঙ্গে তিনজনের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

আশাশুনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম কবীর, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অসিম বরন চক্রবর্তী ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা শাকিল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


এখানে শেয়ার বোতাম