শনিবার, এপ্রিল ১৭
শীর্ষ সংবাদ

সিটি নির্বাচনে ‘কারচুপির তথ্য’ কূটনীতিকদের জানাল বিএনপি

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক:: সদ্য সমাপ্ত ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ‘ইভিএমে ভোট কারচুপি’র চিত্র কূটনীতিকদের কাছে তুলে ধরেছেন তাবিথ আউয়াল ও ইশরাক হোসেন। রোববার (৯ ফেব্রুয়ারি) বিকেল ৪টায় লেকশোর হোটেলে ধানের শীষের এই দুই মেয়র প্রার্থী কূটনীতিকদের ব্রিফিং করেন।

রুদ্ধদ্বার এই বৈঠকে অস্ট্রেলিয়া, রাশিয়া, ডেনমার্ক, নরওয়ের রাষ্ট্রদূতসহ জার্মানি, তুরস্ক, ভারত, ইউরোপীয় ইউনিয়ন নিয়ে মোট ১৩টি দেশের কূটনীতিকরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, কেন্দ্রীয় নেতা ইসমাইল জবিউল্লাহ, শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, শ্যামা ওবায়েদ, আসাদুজ্জামান, জহিরউদ্দিন স্বপন, জেবা খান, মীর হেলাল, ফারহানা মুন্নী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে কূটনীতিকদের সামনে ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে বাধা, ইভিএমে কারচুপি, কেন্দ্র দখল, সাংবাদিকদের ওপর আক্রমনসহ নির্বাচনের সার্বিক চিত্র নিয়ে তথ্য উপাত্তসহ ভিডিও তথ্যচিত্র উপস্থাপন করা হয়।

বৈঠকের পর অপেক্ষামান সাংবাদিকদের ঢাকা দক্ষিণের ধানের শীষের মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন কথা বললেও তাবিথ আউয়াল কথা বলতে অপরাগতা প্রকাশ করেন। বৈঠকে অংশ নেয়া বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দরাও সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি।

ইশরাক বলেন, ‘এখানে দলের ফরেন অ্যাফেয়ার্স কমিটির পক্ষ থেকে একটা প্রেজেন্টেশন দেয়া হয়েছে, কী কী ঘটনা নির্বাচনের দিন ঘটেছে। এর আগে আমরা গত ৫ তারিখে আপনাদের (গণমাধ্যম) সামনে যেটা বলেছি, সেটাই আর কী আমাদের যারা বিভিন্ন মিশনের আছেন তারা জানতে চেয়েছিলেন ফরেন অ্যাফেয়ার্স কমিটির কাছ থেকে। সেটার প্রেজেন্টেশন আজকে আমরা করেছি।’

কোন বিষয়গুলো ফোকাস করেছেন- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘কারচুপির ইলেকশন, জালিয়াতির ভোট- এসব বিষয় তুলে ধরা হয়েছে। তারা তো আমাদের উন্নয়ন সহযোগী দেশ, তারা জানতে চেয়েছেন ইলেক্টোরাল প্রসেসটা কীভাবে সংঘটিত হচ্ছে। তারা আমাদের এখানে বিভিন্ন সময়ে ডেমোক্রেন্সির ওপর প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন, তাদের একটা আগ্রহ থাকে যে, এত বড় নির্বাচন হয়ে গেল- সেটা কীভাবে হলো? সেগুলোর বিষয়ে আমরা তাদেরকে প্রেজেন্টেশন দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা পুরোটা বলেছি। এখানে নির্বাচনে বিভিন্ন স্তরে কারচুপিটা হয়েছে ভোট কেন্দ্র দখল করে, সেখানে ভোট টিপে ভোট দেয়া থেকে শুরু করে একদম ফলাফল পরিবর্তন যা করা হয়েছে, সব কিছু আমরা আমাদের মতো তুলে ধরেছি। একটা কথা আমি বলতে চাই, এগুলো নিয়ে পরে বলবে যে, আমরা অভিযোগ করছি, এই সেই। আমরা কোনো অভিযোগ করছি না। তারা জানতে চেয়েছে, আমরা তাদেরকে জানাচ্ছি। তাদের কাছে অভিযোগ করে তো কোনো লাভ নাই।’

আপনাদের বক্তব্যের পর কূটনীতিকরা কী বলেছেন? জানতে চাইলে ইশরাক বলেন, ‘তারা নির্বাক ছিলেন। তারা খুবই অবাক হয়েছে যে, এভাবে একটা কারচুপি হতে পারে, এত বড় একটা নির্বাচনে। তিন-চার স্তরে ভোট কেন্দ্রগুলো দখল করা হয়েছিল, বাইরে-ভেতরে সব জায়গায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘সাংবাদিকদের আহত করা হয়েছে এটাতে তারা (কূটনীতিকরা) ব্যথিত হয়েছেন। আমাদের পোলিং এজেন্টের আহত করা হয়েছে, সেটাতে তারা ব্যথিত হয়েছেন। আমরা বিভিন্নভাবে পরিসংখ্যান দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছি যে, কিভাবে ফলাফল স্থগিত করে পরবর্তিতে পরিবর্তন করা হয়, গভীর রাতে। এসব শুনেছে, তারা নির্বাক থেকেছেন।’

গত ১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে উত্তরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম এবং দক্ষিণে ফজলে নূর তাপস নির্বাচিত হয়েছেন।


এখানে শেয়ার বোতাম