রবিবার, ফেব্রুয়ারি ২৮
শীর্ষ সংবাদ

সকল প্রকার নির্যাতনের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবান নারীমুক্তি কেন্দ্রের

এখানে শেয়ার বোতাম

নিজস্ব প্রতিবেদক ::  নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ নারী মুক্তি কেন্দ্র সিলেট জেলার উদ্যোগে ধর্ষক-নির্যাতক ও তাদের প্রশ্রয়দাতাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে এবং নারী-শিশুর উপর সকল প্রকার নির্যাতনের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবানে শুক্রবার (৩০ আগস্ট) বিকাল ৪:৩০ টায় কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাহিত্য আসর কক্ষে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ নারীমুক্তি কেন্দ্র সিলেট জেলার আহবায়ক আহŸায়ক তামান্না আহমদেও সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক ইসরাত রাহী রিশতার পরিচালনায় সেমিনারে বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এ্যাডভোকেট এমাদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম শাহীন, বাসদ(মার্কসবাদী) সিলেট জেলার আহবায়ক কমরেড উজ্জল রায়, বাংলাদেশ নারী মুক্তি কেন্দ্র কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সীমা দত্ত, সিলেটের
বিশিষ্ট নারী নেত্রী শামীমা আক্তার, ডাঃ নমিতা দাশ সানি, ডাঃ ফাতেমা ইয়াসমিন ইমা প্রমুখ।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, ১৯৯৫ সালের ২৪ আগস্ট দিনাজপুরের ইয়ছমিন নামক এক কিশোরীকে নির্মমভাবে ধর্ষণ এবং হত্যা করে দায়িত্বরত কিছু পুলিশ সদস্য। এই ঘটনায় সেসময় দিনাজপুর সহ সারা দেশে ব্যাপক আন্দোলন গড়ে উঠে। আন্দোলনে পুলিশের গুলিতে ঝরে পড়ে সাতটি তাজা প্রাণ। এই আন্দোলনে সেদিন অচল হয়ে গিয়েছিল দিনাজপুরের প্রশাসন। আন্দোলনের চাপে অবশেষে দোষী ব্যাক্তিদের
ফাঁসি কার্যকর করা হয়। তাই ২৪ আগস্টকে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

১৯৯৫ থেকে ২০১৯ এই ২৪ বছরে আমাদের দেশের কি অবস্থা, কেমন আছেন আমাদের নারী ও শিশুরা? দেশে পূর্বের তুলনায় আশংকাজনক হারে বেড়েছে নারী ও শিশু নির্যাতন। গত ছয় মাসের পরিসংখ্যান বলছে ৭৩১ জন নারী ও শিশু ধর্ষণ এবং ১১৩ জন নারী ও শিশু গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। তার মধ্যে শুধু শিশু ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৩৯৯টি। খুন করা হয়েছে ২৭৬ জন নারী-শিশুকে। উন্নয়নের জোয়ারে ভাসমান দেশে এই ধর্ষণ-নির্যাতনের ঘটনায় বিচার ব্যাবস্থাও যেন ভাসমান হয়ে আছে। পুলিশ সদর দপ্তরের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, বছরে ধর্ষণ মামলা নিষ্পত্তি হয় ৩.৬৬%, আর সাজার হার ১% এরও কম। এছাড়া স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা-বিশ্ববিদ্যালয়- কর্মক্ষেত্র-গণপরিবহন, গৃহসহ সর্বত্র নারীর নিরাপত্তাহীনতা ভয়াবহ রুপ নিয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে একমাত্র সকল বিবেকবান মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে নারী ও শিশুর উপর সকল প্রকার নির্যাতন-নিপীড়নের বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলা দরকার। নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবসে বক্তারা সকলের প্রতি এই আহবান জানান।


এখানে শেয়ার বোতাম