সোমবার, মার্চ ১
শীর্ষ সংবাদ

লুটপাটতন্ত্র, দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতি রুখে দাঁড়াও : বাম গণতান্ত্রিক জোট

এখানে শেয়ার বোতাম

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বাম গণতান্ত্রিক জোট কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের সভায় দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনায় ক্যাসিনো বাণিজ্যসহ ঘুষ, দুর্নীতির ব্যাপক বিস্তৃতিতে ক্ষোভ প্রকাশ করে নেতৃবৃন্দ লুটপাটতন্ত্র, দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতি রুখে দাঁড়ানোর আহবান জানান।

আজ সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বাম গণতান্ত্রিক জোট কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের সভা তোপখানাস্থ বাসদ কার্যালয়ে জোট সমন্বয়ক ও ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন নান্নুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় উপস্থিত ছিলেন কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহ আলম, বাসদ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, বাসদ (মার্কসবাদী)’র কেন্দ্রীয় পরিচালনা কমিটির সদস্য শুভ্রাংশু চক্রবর্তী, গণসংহতি আন্দোলনের সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য মনিরউদ্দিন পাপ্পু, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের আহ্বায়ক হামিদুল হক, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির মমিনুর রহমান, কমিউনিস্ট পার্টির কাজী সাজ্জাদ জহির চন্দন, আবদুল্লাহ ক্বাফী রতন, রুহিন হোসেন প্রিন্স, বাসদ’র বজলুর রশীদ ফিরোজ, রাজেকুজ্জামান রতন, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের অধ্যাপক আব্দুস সাত্তার, বিপ্লবী ওয়ার্কাস পার্টির বহ্নি শিখা জামালী, আকবর খান, গণসংহতি আন্দোলনের বাচ্চু ভ‍ূঁইয়া।

সভায় দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনায় ক্যাসিনো বাণিজ্যসহ ঘুষ, দুর্নীতির ব্যাপক বিস্তৃতিতে ক্ষোভ প্রকাশ করে নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্তমান সরকার ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি ভোটারবিহীন নির্বাচন, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর নৈশকালীন ভোটে ক্ষমতাসীন হয়ে ফ্যাসিবাদী দুঃশাসন জনগণের উপর চাপিয়ে দিয়েছে। যারা সরকারকে ভোটারবিহীন ও নৈশকালীন ভোটে সহযোগিতা করেছে সেই রাজনীতিবিদ, আমলা ও লুটেরা ব্যবসায়ীদের দুষ্ট চক্রের কাছে নতজানু এ সরকার। ফলে হাজার হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি ফাঁস হওয়ার পরও আমলাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। বরং সরকারি কর্মচারী আইন ২০১৮ প্রণয়নের মাধ্যমে তাদেরকে এক ধরনের দায়মুক্তি প্রদান করা হচ্ছে। দলের অভ্যন্তরের গডফাদারদের সহযোগিতায় দলের নাম ভাঙিয়ে ঠিকাদারী, ক্যাসিনো বাণিজ্যের মাধ্যমে শত শত কোটি টাকা অবৈধভাবে অর্জন করেছে সরকারি দলের নেতা-কর্মীরা। ব্যবসায়ীরা ব্যাংক থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটে নিয়েছে। বর্তমান সরকার লুটপাটতন্ত্র ও দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতি ব্যাপক ও বিস্তৃত করেছে।
আগামী ৫ অক্টোবর থেকে প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরকালে ভারত সরকারের কাছে নাগরিকপঞ্জি, সীমান্তে বিএসএফ কর্তৃক বাংলাদেশি নাগরিকদের হত্যাকাণ্ড, তিস্তাসহ অভিন্ন নদীসমূহে পানির ন্যায্য হিস্যার বিষয়সমূহ তুলে ধরার আহ্বান জানান নেতৃবৃন্দ।

কর্মসূচি
অপরাধ-সিন্ডিকেট, মাফিয়াচক্র গুঁড়িয়ে দেয়ার দাবিতে বাম গণতান্ত্রিক জোটের উদ্যোগে আগামী ৩ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৪টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।


এখানে শেয়ার বোতাম