রবিবার, ফেব্রুয়ারি ২৮
শীর্ষ সংবাদ

রিক্সা চালকদের হয়রানী বন্ধ ও ভ্যান চলাচলের অনুমতির দাবিতে দিনাজপুরে শ্রমিক ফ্রন্টের সমাবেশ

এখানে শেয়ার বোতাম

দিনাজপুর প্রতিনিধি :: পুলিশী হয়রানী বন্ধ করে প্রয়োজনে পৃথক লেন নির্ধারণ করে ব্যাটারি চালিত রিক্সা ভ্যান চালানোর অনুমতির দাবীতে সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট দিনাজপুর জেলা শাখার উদ্যোগে সমাবেশ ও জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি পেশ করা হয়।

আজ বুধবার সকাল ১১ টায় স্মারকলিপি প্রদানের আগে একটি মিছিল শহর প্রদক্ষিণ করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে বক্তব্য রাখে সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের জেলার সংগঠক কিবরিয়া হোসেন, শ্রমিক ফ্রন্টের ১০ মাইল শাখারর সভাপতি মোহাইমেন আলী, সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হোসেন, ১৩ মাইল শাখার সভাপতি আমিনুল ইসলাম প্রমূখ।
জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপিতে তারা বলেন, বাংলাদেশের উত্তরের জনপদ দিনাজপুর জিলা । কৃষিভিত্তিক এই জেলায় ভারী এবং বড় শিল্প কারখানা না থাকায় কৃষির বাইরে আর তেমন কোন কর্ম সংস্থানের সুযোগ এখানে গড়ে উঠেনি।তাই জীবিকার প্রয়োজনে বাধ্য হয়ে রিক্সা চালানোর পেশা বেছে নিয়েছে এই জেলার হাজার হাজার মানুষ। আবার গণপরিবহনের ব্যবস্থা না থাকায় সাধারণ মানুষের জন্য একমাত্র নির্ভরযোগ্য বাহন রিক্সা এবং ভ্যান। শ্রমকে লাঘব করার জন্য এবং কিছুটা গতি বৃদ্ধির প্রয়োজনে ব্যাটারি সংযজনের মাধ্যমেও এখন বিভিন্ন যানবাহন চলছে। সাধারণ মানুষের যাতায়াত, পণ্য পরিবহণ, যাত্রী, অসুস্থ রোগী, নারী, শিশু, বৃদ্ধ সকলের সামর্থ্যের মধ্যেই প্রয়োজন মেটানোর বাহন হয়ে দাঁড়িয়েছে এই ব্যাটারি চালিত বাহন। জমি বন্ধক রেখে, বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে দরিদ্র মানুষেরা রিক্সা কিনে জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করছে। সাম্প্রতিক সময়ে হাইওয়েতে রিক্সা চলাচল বন্ধ করার ফলে চালকদের জীবিকা এবং সাধারণ মানুষের যাতায়াতে এক মারাত্মক দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে।

হাইওয়েতে স্বল্প গতির যানবাহন চলাচল বন্ধ করার কথা অনেকেই বলে থাকেন। কিন্তু একথা স্বীকার করতে দ্বিধা নেই যে, আমাদের এই অঞ্চলের হাইওয়ে আধুনিক দেশ সমুহের হাইওয়ের মত নয়। এখানে জেলার সাথে সংযোগ সড়কের পাশে আবাসিক এলাকা, গ্রাম, বাজার, স্কুল- কলেজ সহ নানাবিধ স্থাপনা আছে। ব্যক্তিগত বাহন ব্যবহারের সামর্থ্য যেহেতু সবার নেই তাই সাধারণ মানুষের জন্য রিক্সাই একমাত্র বাহন। বিপুল সংখ্যক মানুষের যাতায়াতের বাহন এই রিক্সা বন্ধ হলে শুধু রিক্সা চালকেরা ক্ষতিগ্রস্থ হবে তাই নয় সাধারণ মানুষও ভীষণ দুর্দশার মধ্যে পড়বে।

তাই আপনার কাছে আমাদের বিনিত আবেদন, পুলিশী হয়রানী বন্ধ করে প্রয়োজনে পৃথক লেন নির্ধারণ করে ব্যাটারি চালিত রিক্সা ভ্যান চালানোর অনুমতি দিন। রিক্সা কেড়ে নিয়ে হাজার হাজার শ্রমিকের জীবিকা যেন কেড়ে নেয়া না হয়। সড়কের শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তার স্বার্থে নীতিমালা প্রণয়ন করে শ্রমজীবীদের জীবিকা অর্জনের সহায়তা করতে আমরা আপনার সরবউচ্চ উদ্যোগ কামনা করি।

দাবি সমূহ
১.বড়মাঠ থেকে কান্তনগর পর্যন্ত নির্বিঘ্নে চলাচল করতে দিতে হবে।
২.হাইওয়েতে পুলিশী নির্যতন বন্ধ করতে হবে
৩.স্বল্প গতির যান বাহনের জন্য পৃথক লেন চালু করতে হবে।


এখানে শেয়ার বোতাম