শনিবার, জানুয়ারি ১৬

রাস্তাঘাট সংস্কার সহ ৩ দফা দাবিতে বরিশালে বাসদের সমাবেশ

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 34
    Shares

বরিশাল প্রতিনিধি:: অবিলম্বে বরিশালে চলাচলের অযোগ্য সকল ভাঙাচোরা রাস্তাঘাট-খাল-ড্রেন ও খাল সংস্কার, রিক্সা-ইজিবাইক ও হকার উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র বন্ধ ও করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে বকেয়া ফি মওকুফ করে রিক্সাশ্রমিকদের লাইসেন্স নবায়নের সুযোগের দাবিতে বরিশালে বাসদের সমাবেশ।

আজ বুধবার (০৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় বাসদ বরিশাল জেলা শাখার উদ্যোগে রূপাতলী ও সাগরদি বাজারে ২টি মানবন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

রূপাতলী গোলচত্তরে মানিক হাওলাদারের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাসদ বরিশাল জেলার সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী, বাসদ নেতা ও সোনারগাঁ টেক্সটাইলের শ্রমিক নেতা নুরুল হক, ইউসুফ হাওলাদার, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের মহানগর শাখার প্রচার সম্পাদক বিজন শিকদার।

বেলা ১২টায় সাগরদি বাজারে বাসদ ২৩ নং ওয়ার্ডের সংগঠক মনিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন বাসদ আহŸায়ক ইমরান হাবিব রুমন, সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী, বাসদ নেতা হারুন শরিফ, জলিল হাওলাদার, ছাত্র ফ্রন্টের কৌশিক ব্যাপারি প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী বলেন, সাগরদি বরিশালের অন্যতম পুরাতন আবাসিক এলাকা, ৩টি ওয়ার্ডের মানুষ শহরে যাবার জন্য সাগরদির রাস্তা ব্যবহার করে। অথচ সাগরদির রাস্তায় পিচের কোন আস্তরণ খুঁজে যাওয়া যায়না। ঐতিহ্যবাহী সাগরদি খাল আজ একটি সংকীর্ণ ড্রেনে পরিণত হয়েছে। রূপাতলি হাউজিং এলাকা কিছুদিন আগে সামান্য বৃষ্টিতে প্রায ১৫ দিন পানির নিচে ডুবে ছিল। নগরীর অন্যান্য এলাকার মত এখানকার মানুষকেও নির্বাচনের আগে উন্নয়নের স্বপ্ন দেখানো হয়েছিল। উন্নয়নের সেসব ফাঁকা বুলির অসারতা এসব খানা-খন্দে ভরা রাস্তায় চলতে গিয়ে জনগণ হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে।

ইমরান হাবিব রুমন বলেন, বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে হোল্ডিং ট্যাক্স নির্ধারণের হার অত্যন্ত উচ্চ, কিন্তু নাগরিক অধিকার এর নিশ্চয়তা দেবার বেলায় তৎপরতা প্রায় অদৃশ্য। রাস্তা-খাল-ড্রেনের সংস্কার নেই,কিন্তু জনগণের পকেট কাটার সমস্ত আয়োজন রয়েছে। রিক্সার লাইসেন্স নবায়ন করতে গিয়ে শ্রমিকদের কাছ থেকে বিগত কয়েক বছরের সকল বকেয়া আদায়ে চাপ দেয়া হচ্ছে যা এই করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে অনেক রিক্সাশ্রমিকের জন্যই দেয়া সম্ভব নয় এবং এটা বেশ অমানবিকও বটে। করোনা মহামারির একটা বড় সময় রিক্সা বন্ধ ছিল এবং এখনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে রিক্সা শ্রমিকদের আয় কমে গেছে। এই অবস্থায় যেকোন জনপ্রতিনিধির উচিত এই রিক্সাশ্রমিকদের পাশে দাঁড়ানো। কিন্তু তা না করে বিসিসি থেকে যেভাবে এই মহামারি পরিস্থিতিতে টাকা আদায়ে রিক্সাশ্রমিকদের উপর চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে এবং নাহলে রিক্সা উচ্ছেদের হুমকি দেয়া হচ্ছে তা অখুবই বিস্ময়কর।

সমাবেশ থেকে বক্তারা অবিলম্বে বরিশালে চলাচলের অযোগ্য সকল ভাঙাচোরা রাস্তাঘাট-খাল-ড্রেন ও খাল সংস্কার কর, রিক্সা-ইজিবাইক ও হকার উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র বন্ধ করা এবং করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে বকেয়া ফি মওকুফ করে রিক্সাশ্রমিকদের লাইসেন্স নবায়নের সুযোগ দেওয়ার দাবি বাস্তবায়নের আহবান জানান

নেতৃবৃন্দ আগামীকাল ১০ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সকার ১১টায় ভাটিখানা বাজারে অনুষ্ঠিতব্য তিন দফা দাবির বিক্ষোভ সমাবেশে সবাইকে উপস্থিত থাকার আহবান জানান এবং নাগরিক অধিকার আদায়ের এই আন্দোলনে সবার সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 34
    Shares