রবিবার, নভেম্বর ২৯

মৃত ডাক্তারের স্বাক্ষরে প্যাথলজি রিপোর্ট!

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক:: বরিশালে মৃত ডাক্তারের নামে প্যাথলজি রিপোর্ট ইস্যু করায় এক ডাক্তারসহ তিনজনকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

একই সঙ্গে প্রতারণার দায়ে একটি ডায়াগনস্টি সেন্টার সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে।

বুধবার বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত র‌্যাব-৮ এবং স্বাস্থ্য বিভাগের সহায়তায় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে বরিশাল নগরের জর্ডন রোড এলাকার দি সেন্ট্রাল মেডিকেল সার্ভিস ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিলগালা করে দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ভ্রাম্যমাণ আদালত ভুয়া ডিগ্রি ব্যবহার এবং মৃত ডাক্তারের নামে প্যাথলজি রিপোর্ট ইস্যু করায় ডা. নুরে আলম সরোয়ার সৈকত, বরিশাল দি সেন্ট্রাল মেডিকেল সার্ভিস ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক এ কে চৌধুরী ও জসিম উদ্দিন মিলন কাফিকে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জানান, সাজাপ্রাপ্ত ডা. সৈকত বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক না হয়েও মেডিকেল কলেজের নাম-পদবী ব্যবহার করায় তাকে (সৈকত) ৬ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। অপরদিকে ডায়াাগনস্টিক সেন্টারে আগে কর্মরত প্যাথলজিস্ট ডা. গাজী আমানুল্লাহ খান ১৯ জুলাই মারা যাওয়ার পরও তার স্বাক্ষর রিপোর্টে ব্যবহার করায় ডায়াগনস্টিক সেন্টারের দুই মালিককেও ৬ মাস করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ওই ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত জানায়, গোপন সূত্রে এই খবর পেয়ে সন্ধ্যায় ওই ডায়াগনস্টিক সেন্টারে যৌথ অভিযান চালিয়ে ভুয়া ডাক্তার এবং ডায়াগনস্টিকের দুই মালিককে হাতেনাতে আটক করেন তারা। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের কাছে তারা মৃত ডাক্তারের স্বাক্ষর ব্যবহার করে পরীক্ষার রিপোর্ট দেওয়ার কথা স্বীকার করে তারা। দণ্ডপ্রাপ্ত তিনজনকে বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

তবে দণ্ডপ্রাপ্ত সৈকত নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছে। তিনি বিসিএস ক্যাডার না হলেও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে ২০১৯ সালে এমবিবিএস পাশ করেছেন বলে জানান।


এখানে শেয়ার বোতাম