বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২৪
শীর্ষ সংবাদ

‘মানুষের সকল অধিকার হোক নিরঙ্কুশ’ স্লোগানে রাষ্ট্রচিন্তা’র অমর একুশে পালন

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 52
    Shares

অধিকার ডেস্ক:: ‘ওরা আবার মুখের কথা কাইড়া নিতে চায়’ স্লোগানে এবং ‘মানুষের সকল অধিকার হোক নিরঙ্কুশ’ দাবীতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করেছে রাষ্ট্রচিন্তা।

আজ ২১ ফেব্রুয়ারি, সোমবার সকালে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে ভাষা শহিদদের স্মরণে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় রাষ্ট্রচিন্তার সদস্যরা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন দিদারুল ভূঁইয়া, রাখাল রাহা, নাইমুল ইসলাম নয়ন, লিটন কবিরাজ, মাহবুবুল হক মিল্টন, আদিল হোসাইন, হাবিবুর রহমান সহ আরো অনেকে।

শ্রদ্ধা নিবেদনের পর নেতৃবৃন্দ বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন যখন মাথার উপর খড়গের মতো থাকে তখন মানুষের মত প্রকাশের কোনো স্বাধীনতাই থাকেনা। আর মত প্রকাশের স্বাধীনতা না থাকলে মানুষের আর কোনো অধিকার থাকারই কোনো সুযোগ নাই।

আমরা দেখেছি করোনার মতো দূর্যোগে রাষ্ট্রীয় এবং সরকারের ব্যর্থতা তুলে ধরার কারণে রাজনৈতিক কর্মী, সাংবাদিক, লেখক, কার্টুনিষ্টসহ সাধারণ মানুষকেও জেলে পোরা হয়। রাজনৈতিক প্রতিহিংসা বশত সে মামলায় রাষ্ট্রচিন্তা’র সদস্য দিদারুল ভূঁইয়ার নামে চার্যশিটও দেয়া হয়েছে। কিশোর, মুস্তাক এখনো জামিন পান নাই। এ আইনের অন্যান্য মামলায় দীর্ঘদিন জেল খেটেছেন সাংবাদিক কাজল, আর্কিটেক্ট মাহফুজ সহ অনেকে।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে খোদ সরকারের একজন শীর্ষ উপদেষ্টা যখন গণমাধ্যমে স্বীকার করেন যে এ আইন অন্যায় উদ্দেশ্যে ব্যবহারের সুযোগ আছে, তখনো আমরা দেখি এ মামলাগুলো বাতিল করা হয়নি। বরং এখনো নিয়মিত এ আইনে নতুন নতুন মামলা করা হচ্ছে।

এ প্রেক্ষিতে অমর একুশের প্রাক্কালে রাষ্ট্রচিন্তা অবিলম্বে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবী জানায়। এবং অবিলম্বে রাষ্ট্রের সকল প্রতিনিধির জনগণের কাছে জবাবদিহির এবং প্রতিনিধিদের মধ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য প্রতিষ্ঠার জন্য রাষ্ট্র সংস্কারের দাবীতে ঐক্যবদ্ধ হতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানায়।

এরপর নোয়াখালীতে সাংবাদিক খুনের প্রতিবাদে বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদ কর্তৃক প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক বিক্ষোভ সমাবেশেও অংশ নেন রাষ্ট্রচিন্তা’র সদস্যরা। সেখানে রাষ্ট্রচিন্তা’র সদস্য দিদারুল ভূঁইয়া বলেন, আওয়ামীলীগের ভাগবাটোয়ার কামড়াকামড়িতে, ক্ষমতার লড়াইয়ে আমাদের এক সাংবাদিক ভাই খুন হয়েছেন। তাদের স্বার্থের লড়াইয়ে বলি হবার রাজনীতিকে, তাদের লাশের রাজনীতিকে আমরা ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করি। এমন রাজনীতির জবাব কী হতে পারে, তা দেখিয়েছে আমাদের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্যবিদ্যালয়ের ভাই বোনেরা। তারা হলের তালা ভেঙ্গে তাদের অধিকার আদায় করেছে, তাদের উপর করা নির্যাতনের জবাব দিয়েছে।

তিনি আরো যুক্ত করেন, এ রাষ্ট্রে আমাদের সকল অধিকারকে এমন তালা মেরে আটকে দেয়া হয়েছে। আমাদের সেসব তালা ভেঙ্গে এ রাষ্ট্রে আমাদের সকল অধিকার নিরঙ্কুশ করতে হবে। শুরুটা হতে পারে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করে। আসুন সবাই সমস্বরে বলি, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মানিনা। আমরা আমাদের সকল অধিকার নিরঙ্কুশ চাই।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 52
    Shares