বুধবার, জানুয়ারি ২৭

মাগুরায় বিভিন্ন দাবিতে গণকমিটির সমাবেশ ও পদযাত্রা

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 133
    Shares

মাগুরা প্রতিনিধি:: মাগুরা হাসপাতালে করোনা টেস্ট ল্যাব (পিসিআর ল্যাব), হাই ফ্লো অক্সিজেন সাপ্লাই, আইসিইউ ও ভেন্টিলেটরের ব্যবস্থা করে করোনা রোগীর চিকিৎসার উপযোগী আয়োজন নিশ্চিত করার দাবিতে মাগুরা জেলা করোনা দুর্যোগ মোকাবিলায় গণকমিটির সমাবেশ ও পদযাত্রা অনুষ্ঠিত ।

আজ মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় চৌরঙ্গী মোড়ে সমাবেশ ও সিভিল সার্জন এর কার্যালয় পর্যন্ত পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয় ।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন গণকমিটির আহ্বায়ক এটিএম মহব্বত আলী ( বাংলাদেশ জাসদ মাগুরা জেলা শাখার সভাপতি)।

সমাবেশ পরিচালনা করেন যুগ্ম সদস্য সচিব প্রকৌশলী শম্পা বসু (বাসদ কেন্দ্রীয় পাঠচক্র ফোরামের সদস্য)। বক্তব্য প্রদান করেন গণকমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী ফিরোজ (বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি মাগুরা জেলা সভাপতি) , বাহারুল হায়দার বাচ্চু (সদস্য, বাংলাদেশ জাসদ)। উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সমাজসেবক কামরুজ্জামান চপল ।

বক্তাগণ বলেন, জনসংখ্যার অনুপাতে করোনা আক্রান্ত হওয়ার হার বেশি বাংলাদেশের এমন ১৫টি জেলার একটি মাগুরা জেলা । অথচ মাগুরা সদর হাসপাতালে করোনা টেস্ট ল্যাব, জেলা হাসপাতালে হাই ফ্লো অক্সিজেন সাপ্লাই, আইসিইউ ও ভেন্টিলেটর নেই। অর্থাৎ করোনা রোগীর চিকিৎসার প্রাতিষ্ঠানিক কোন আয়োজনই নেই। করোনা দুর্যোগ মোকাবিলায় গণকমিটির পক্ষ থেকে ৬ মাস ধরে দাবি জানান হচ্ছে । কেবল আশ্বাস দেওয়া হচ্ছে, বাস্তবায়ন করা হচ্ছে না । মাগুরা জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১৯ জন (সিভিল সার্জন এর কার্যালয় থেকে প্রকাশিত হিসাব অনুযায়ী ; করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও অনেকে মারা গেছেন)। মাগুরা জেলায় করোনা চিকিৎসার যথাযথ ব্যবস্থা থাকলে অনেকেই বাঁচানো সম্ভব হতো। আজকের তথ্য অনুযায়ী করোনা আক্রান্ত একজন রোগীও মাগুরা হাসপাতালে ভর্তি নেই আর ঢাকা বা ফরিদপুরে রেফারড করা রোগী এখন চিকিৎসা নিচ্ছেন ৫ জন। মাগুরার স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে জেলার মানুষদের এমনই অনাস্থা যে, যার-ই আর্থিক সামর্থ্য আছে সে ফরিদপুর বা ঢাকাতে চিকিৎসা সেবা নিচ্ছেন, মাগুরাতে নয় । বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে করোনা পরিস্থিতি দীর্ঘায়িত হতে পারে । বিভিন্ন দেশে ২য় দফা করোনা ওয়েভ এসেছে । বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও সেটি ঘটতে পারে । ফলে আমাদের উচিত তার জন্য প্রস্তুত থাকা।

বক্তাগণ আরও বলেন, গত ২৮ জুলাই মাগুরা জেলা সিভিল সার্জন বরাবর স্মারকলিপি পেশ করা হয়েছিল । সিভিল সার্জন মহাদয় উপরোক্ত সকল দাবির যৌক্তকতা স্বীকার করে সেসময় আশ্বাস দেন ১ মাসের মধ্যে হাই ফ্লো অক্সিজেন সাপ্লাই সিস্টেম স্থাপন সম্পন্ন করা হবে এবং করোনা টেস্ট ল্যাব (পিসিআর ল্যাব ) নির্মাণের কাজ শুরু হবে । কিন্তু দেড় মাস অতিবাহিত হলেও হাই ফ্লো অক্সিজেন সাপ্লাই সিস্টেম স্থাপন হয়নি।

সমাবেশ থেকে অবিলম্বে এ সকল দাবি বাস্তবায়নের আহ্বান জানান হয় ।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 133
    Shares