মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৪

মমিনুর সহ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তারকৃত সকলের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক:: বাম গণতান্ত্রিক জোট কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের সমন্বয়ক ও বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড বজলুর রশীদ ফিরোজ ও জোটের কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের সদস্য সিপিবি সভাপতি কমরেড মুজাদিুল ইসলাম সেলিম, সাধারণ সম্পাদক কমরেড শাহ আলম, বাসদ সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাইফুল হক, বাসদ (মার্কসবাদী)’র সাধারণ সম্পাদক কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী কমরেড জোনায়েদ সাকি, কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক কমরেড মোশাররফ হোসেন নান্নু, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পদক কমরেড মোশরেফা মিশু, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের আহ্বায়ক কমরেড হামিদুল হক আজ ১৮ আগস্ট ২০২০ সংবাদপত্রে দেয়া এক যুক্ত বিবৃতিতে গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা ও বাংলাদেশ কৃষক ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সভাপতি মমিনুর রহমান বিশালকে নিবর্তনমূলক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তারের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে অবিলম্বে মমিনুর রহমান বিশালের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, সরকার করোনা মোকাবেলায়, জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত ও বন্যা দুর্গতদের ত্রাণ ও পুনর্বাসনে চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে দেশবাসীকে দুর্ভোগে ফেলেছে। তার সাথে সরকার প্রশাসন ও সরকার দলীয় লোকদের দুর্নীতি, লুটপাট সীমা ছাড়িয়েছে। দুঃশাসনে জনজীবনে নাভিশ্বাস উঠেছে। সরকারের ব্যর্থতা-দুর্নীতি নিয়ে কেউ সমালোচনা করলে, গণমাধ্যমে দুর্নীতি-লুটপাটের খবর ছাপালে তা দমনে এই কুখ্যাত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার নির্যাতন করা হচ্ছে। কালো আইনে গ্রেপ্তার হয়ে এখনো জেলে আছেন কার্টুনিস্ট কিশোর, লেখক মোস্তাক, অ্যাকটিভিষ্ট দিদার, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক জাকির ও সাংবাদিক কাজলসহ অনেকে।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে ডিজিাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তারকৃত কৃষক ফোরামের সভাপতি মমিনুর রহমান বিশাল, সাংবাদিক কাজলসহ সকলের নিঃশর্ত মুক্তি ও নিবর্তনমূলক কালো আইন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের জোর দাবির জানান।


এখানে শেয়ার বোতাম