মঙ্গলবার, মে ১১
শীর্ষ সংবাদ

ভারতের সঙ্গে চুক্তিতে দেশের স্বার্থ রক্ষা হয়নি: মাহমুদুর রহমান মান্না

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক ::  ভারত সফরের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্যর্থ হয়েছেন দাবি করে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, ‘ভারতের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে তাতে দেশের স্বার্থ রক্ষা হয়নি। এই চুক্তির মাধ্যমে সরকার যে বড় রকমের অপরাধ করেছে, সেটা ক্যাসিনো অভিযানের মাধ্যমে চেপে রাখা যাবে না। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এ চুক্তির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ গড়ে তুলতে হবে।’

সোমবার (৭ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে সমসাময়িক ইস্যুতে দলটির পক্ষ থেকে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

মান্না বলেন, ‘সরকার প্রথমবার ক্ষমতায় আসার পর থেকে প্রতিটি ক্ষেত্রে দেশের স্বার্থ বিকিয়ে দেওয়া হয়েছে। এবারও সেটার ব্যতিক্রম হয়নি। কিন্তু এবার যেসব চুক্তি এবং সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে সেগুলোর দিকে তাকালে দেখা যাবে, এতে বাংলাদেশের ন্যূনতম স্বার্থ রক্ষা হয়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘সর্বপ্রথম আমরা দাবি করবো, এই চুক্তিগুলোর খুঁটিনাটি জনগণের জন্য প্রকাশ করা হোক। আমরা বিশ্বাস করি, তাতে আমাদের সামনে আরও অনেক ভয়ঙ্কর তথ্য বেরিয়ে আসবে।

সরকার এর মধ্যেই এই সফরে সাফল্য অর্জিত হয়েছে বলে প্রচারণা শুরু করে দিয়েছে বরাবরের মতো। কিন্তু খুঁজলে দেখা যাবে, হাতেগোনা যেসব বিষয়ে বাংলাদেশ লাভবান হতে পারে— সেগুলো খুব তুচ্ছ। দুটো রাষ্ট্রের মধ্যে অতি নিচু লেভেলে এ বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হতে পারে, প্রধানমন্ত্রীর লেভেলে এগুলো নিয়ে কথা বলা বা চুক্তি স্বাক্ষর করার কিছু নেই।’

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক আরও বলেন, ‘বছরের-পর-বছর তিস্তা চুক্তি ঝুলে আছে।ভারতের কোনও রাজ্যের এ ব্যাপারে বিরোধিতার কথা বাংলাদেশেও আলোচিত।’

উপকূলে রাডার বসানোর চুক্তির বিষয়ে মান্নার অভিযোগ, ‘আমাদের দেশের শক্তিশালী নজরদারিসহ সবদিক থেকে সক্ষম নৌ-বাহিনী থাকার পরও কেন আমাদেরকে ভারতের সহায়তার রাডার স্টেশন স্থাপন করতে হবে, সে বিষয়টি স্পষ্ট নয়।’

মান্না বলেন, ‘সীমান্তে হত্যা পুরোপুরি বন্ধ হবে এরকম কোনও মানবিক সিদ্ধান্ত বাংলাদেশ অপর পক্ষ থেকে আদায় করতে পারেনি। ন্যূনতম কূটনৈতিক আশ্বাসও ছিল অনুপস্থিত।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সবসময় উঁচু গলায় দাবি করা হয়, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক স্মরণকালের সবচেয়ে উঁচুতে অবস্থান করছে।’ মান্নার অভিযোগ— দেশের বর্তমান ক্ষমতাসীন দল এখনও পর্যন্ত ভারতের সঙ্গে যেসব দ্বিপাক্ষিক চুক্তি এবং সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে, তার প্রায় সবগুলোই শেষপর্যন্ত একপাক্ষিকই থেকেছে।’

তিনি বলেন, ‘গত এক দশকের বেশি সময় ধরে এই দলটি ক্ষমতায় আছে এবং বাংলাদেশকে দুর্নীতির অভয়ারণ্য বানিয়ে ফেলা হয়েছে এই সময়টাতেই।এই দেশে দুর্নীতি সব সময় ছিল। কিন্তু এটা আর কোনও সময়ের সঙ্গে কোনোভাবেই তুলনীয় নয়।’

এসময় নাগরিক ঐক্যের কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।


এখানে শেয়ার বোতাম