মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১৯

বৈরী আবহাওয়ায় ভোগান্তির পরও স্বস্তির ভর্তি পরীক্ষা শাবিতে

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক :: রেল স্টেশন, বাস স্ট্যান্ডে শুক্রবার রাত থেকে পা ফেলার জায়গা নেই। কোনো কোনো পরীক্ষার্থীর সঙ্গে অভিভাবক এসেছেন দুজন। বিশেষ করে ছাত্রীদের সঙ্গে। অধিকাংশ ছাত্রের সঙ্গেও অভিভাবকরা এসেছেন। ফলে ৭১ হাজার পরীক্ষার্থীর সঙ্গে এসেছেন আরো ৮০ হাজার মানুষ।

এ অবস্থায় ছোট সিলেট নগরী অনেকটাই অচল হয়ে পড়ে। আবাসিক হোটেলগুলোতে ঠাই ছিল না। কোনো কোনো রুমে গাদাগাদি করে থেকেছেন পরীক্ষাথীরা। অনেকেই আত্মীয় স্বজনদের বাসা-বাড়িতে আশ্রয় নেন। তবে এ সংখ্যা ছিল খুবই কম। এরকম নানা ভোগান্তির পরও স্বস্তির পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়া বৈরী আবহাওয়ার কারণে দূর্ভোগ পোহাতে হয় দেশের দূর দূরান্ত থেকে আসা পরীক্ষার্থীদের। শনিবার শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) (২০১৯-২০২০) শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়। তবে বড় ধরনের কোনো সমস্যা ছাড়াই শেষ হয় পরীক্ষা। পরীক্ষা চলাকালে ডিজিটাল ডিভাইসসহ গ্রেফতার করা হয়েছে ৫ জালিয়াতকে।

গেলবার যান বাহনের অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে যে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল, সেটিও অনেকটা রোধ করা গেছে সচেতনতামুলক নানা কার্যক্রমের কারণে। এ বছর সিলেট চেম্বার অব কমার্স এণ্ড ইন্ড্রাস্ট্রি, এমসি কলেজসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে বিনামূল্যে বাস দেওয়া হয়। আর সিলেট বাইকিং কমিউনিটি (এসবিসি) ও বুস্টার্স নামে দুটি বাইকিং সংগঠন পরীক্ষার্থীদের বিনা ভাড়ায় ২’শ বাইক দিয়ে সহযোগিতা করে।

আম্বরখানা থেকে শাবি কেন্দ্রে যেতে অনেক পরীক্ষার্থীকে ভোগান্তি পোহাতে হয়। সেখানে যাত্রী ওঠানোর পর পরই সিএনজি অটো রিকশা চালকরা অতিরিক্ত ভাড়া নেয় বলে অভিযোগ অনেক পরীক্ষার্থীর। তবে বিভিন্ন পয়েন্টে স্বোচ্ছাসেবকরা থাকায় তেমন সুবিধা করতে পারেননি যান চালকরা।

এবার ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির চেষ্টাকালে ৫ শিক্ষার্থীকে আটক করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তাদের কাছ থেকে সিমকার্ডযুক্ত ক্যালকুলেটর জব্দ করা হয়। এ ডিভাইসের মাধ্যমে তারা বাইরে থেকে উত্তর আদান-প্রদান করছিল বলে শাবি কর্তৃপক্ষ জানায়। তারা হলো মঈন উদ্দিন আদর্শ মহিলা কলেজ কেন্দ্র থেকে শাহ মোহাম্মদ শাহেল, সিলেট পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট কেন্দ্র থেকে মাহমুদুল হাসান, শাহজালাল জামেয়া ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা কেন্দ্র থেকে দুই শিক্ষার্থী আহসান আলী ও ইব্রাহিম খলিল জীবন, সিলেট সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজ কেন্দ্র থেকে মোহাইমিনুল ইসলাম।

আটককৃত শিক্ষার্থীদের মধ্যে চার শিক্ষার্থীর বাড়ি বগুড়ায় এবং মোহাইমিনুল ইসলাম ময়মনসিংহ থেকে এসেছে বলে নিশ্চিত করেছেন প্রশাসন। এ বিষয়ে জালালাবাদ থানার ওসি অখিল উদ্দীন বলেন, ‘এই থানায় দুই জন শিক্ষার্থী আটক আছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদের বিরুদ্ধে মামলা করবেন, আমরা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো। বাকি তিন শিক্ষার্থী অন্য থানার অধীনে।’

মামলার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন বলেন, ‘আমরা তথ্য সংগ্রহ করছি। তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো এবং মামলার প্রস্তুতি চলছে।’

শাবি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এবার ভর্তি পরীক্ষার জন্য ‘এ’ ও ‘বি’ ইউনিটে আবেদন করেন ৭০ হাজার ৫৪৩ শিক্ষার্থী। ‘এ’ ইউনিটে ৬১৩টি আসনের বিপরীতে আবেদন করেন ২৭ হাজার ৩৯ শিক্ষার্থী এবং ‘বি’ ইউনিটের ৯৯০টি আসনের বিপরীতে আবেদন করেন ৪৩ হাজার ৫০৪ শিক্ষার্থী। এর বাইরে সংরক্ষিত আসন আছে একশটি। সবমিলিয়ে আসন সংখ্যা ১৭০৩টি। প্রতি আসনের বিপরীতে ৪২ শিক্ষার্থী পরীক্ষা দেন।


এখানে শেয়ার বোতাম