মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১৯

বিসিবির বায়োবাবল সিকিউরিটি নিয়ে সন্তুষ্ট ক্যারিবীয় প্রতিনিধি দল

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 7
    Shares

অধিকার ডেস্ক:: প্রস্তাবিত দুই ভেন্যু পরিদর্শন করে সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছেন উইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের দুই সদস্যের পর্যবেক্ষক দল।

বিসিবির বায়োবাবল সিকিউরিটি নিয়ে সন্তুষ্ট উইন্ডিজ প্রতিনিধি দল। জানুয়ারিতে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নিয়ে আশাবাদী তারা। উইন্ডিজ পৌঁছেই রিপোর্ট জমা দেয়ার পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে উইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড। সব ঠিক থাকলে জানুয়ারির মাঝামাঝিতে ঢাকায় আসবে ক্যারিবীয়রা। কোয়ারেন্টিনে থাকবে সাত দিন, তিনদিনের পর থাকবে অনুশীলনের সুযোগ।

প্রস্তুতিমূলক টুর্নামেন্টে সফল, এবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার পালা টাইগারদের। সব ঠিক থাকলে ফেরা হচ্ছে জানুয়ারিতেই।

কোভিড পরিস্থিতি মোকাবেলায় কতটা সফল বিসিবি, তা পর্যবেক্ষণে ঢাকায় অবস্থান করছে উইন্ডিজ প্রতিনিধি দল। এরই মধ্যে প্রস্তুতি ম্যাচ ভেন্যু বিকেএসপিসহ, মূল দুই মাঠ জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, আর মিরপুরের শেরে বাংলা স্টেডিয়াম পরিদর্শন করেছেন তারা। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডর বায়োবাবল সিকিউরিটি নিয়ে সন্তুষ্ট উইন্ডিজ প্রতিনিধি দল।

উইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক ড. আকশাই মানসিং বলেন, ‘আমরা এখানে আসার আগে বেশ কিছু মিটিং করেছি এবং বিসিবির প্রোটোকল সম্পর্কে শুনেছি, যা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। বিসিবি আমাদেরকে প্রোটোকলসমূহের যে বর্ণনা দিয়েছে, সেগুলো অসাধারণ আইডিয়া। যেহেতু আমাদের আসার আগে তাদের দুটি টুর্নামেন্ট হয়েছে এবং একটি চলমান, সুতরাং জৈব সুরক্ষা বলয় তৈরি করতে তারা অভ্যস্ত।’

উইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের সিকিউরিটি ম্যানেজার পল এসমন্ড স্লোয়ি বলেন, আমার প্রাথমিক কাজ ছিল প্রস্তাবিত সিরিজটির নিরাপত্তার বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করা। আমাদের কাছে উপস্থাপিত নিরাপত্তা পরিকল্পনা ও প্রোটোকলগুলো খুবই সন্তোষজনক। আমার কোনও সন্দেহ নেই যে সেই পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়ন করা হলে কোনও ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটবে না। আমি পুরো আয়োজনের ওপর অত্যন্ত খুশি; এয়ারপোর্ট, হোটেল, প্র্যাকটিস ভেন্যু থেকে ম্যাচের ভেন্যু- সবকিছু নিয়ে।’

ক্যারিবিয়ান পর্যবেক্ষক দলের ভাষ্য অনুযায়ী জানুয়ারিতেই হতে যাচ্ছে সিরিজ। যদিও তাদের দেয়া রিপোর্ট পর্যালোচনা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে উইন্ডিজ বোর্ড। সবুজ সংকেতের অপেক্ষায় বিসিবিও। তার পরেই চূড়ান্ত হবে সিরিজের সময়-সূচি।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড পরিচালক জালাল ইউনুস বলেন, ‘উনারা ঢাকা ও চট্টগ্রামের দুই ভেন্যু পরিদর্শন করেছেন। আমি যতটুকু বলতে পারি, তারা অত্যন্ত সন্তুষ্ট আমাদের ব্যবস্থাপনায়। তারা হাসপাতাল, হোটেল, ভেন্যু- সবই দেখেছেন। লিভিং কন্ডিশন কেমন হবে, সিকিউরিটি কেমন হবে, সিকিউরিটি সাইডেও উনারা ব্রিফ করেছেন। উনারা সন্তুষ্ট। ওয়েস্ট ইন্ডিজে ফিরে গিয়ে রিপোর্ট করবেন। এবং তারা মনে করছেন, তারা সবকিছুই পজিটিভ এখান থেকে দেখে গেছেন, সিদ্ধান্ত নেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোর্ড।’

সব ঠিক থাকলে জানুয়ারির মাঝামাঝিতে ঢাকায় পা রাখবে ক্যারিবীয় দল। কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে ৭ দিন। তিন দিন বাদে করতে পারবে অনুশীলন, তবে শর্ত কোভিড টেস্টে হতে হবে নেগেটিভ। সিরিজের ব্যাপ্তি কমাতে অনুরোধ করেছিল উইন্ডিজ। সে বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত আসেনি।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 7
    Shares