শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৬
শীর্ষ সংবাদ

বিশ্ববিদ্যালয় খোলা প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রীর ঘোষণার প্রতিবাদ জানিয়েছে ছাত্র ফ্রন্ট

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 181
    Shares

অধিকার ডেস্ক:: সম্প্রতি জাহাঙ্গীরনগর, বরিশাল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে হল খুলে দেয়ার দাবিতে ছাত্রদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে শিক্ষামন্ত্রী ২২ ফেব্রুয়ারী সংবাদ সম্মেলনে ১৭ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খোলা এবং ২৪ মে থেকে ক্লাস শুরু হবে বলে ঘোষণা করেন। ২৪ মে’র আগ পর্যন্ত কোন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না বলেও তিনি জানান।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় সভাপতি মাসুদ রানা এবং সাধারণ সম্পাদক রাশেদ শাহরিয়ার এক যুক্ত বিবৃতিতে শিক্ষা মন্ত্রী ডাঃ দিপু মণির বিশ্ববিদ্যালয় খোলা প্রসঙ্গে এ ঘোষণা প্রত্যাখান করে বলেন- ‘করোনা মহামারীর অজুহাতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি দীর্ঘায়িত করার এ ঘোষণা সারাদেশের ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা জীবনকে আরও অনিশ্চয়তার মধ্যে ঠেলে দিল। দেশের সকল কার্যক্রম স্বাভাবিক এবং সরকার করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলে বাহবা নিচ্ছে। অথচ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলতে নানারকম তালবাহানা করছে। এর ফলে লক্ষ লক্ষ শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবন দীর্ঘ হচ্ছে। পাহাড়সম বেকার সমস্যার দেশে শিক্ষার্থীরা তাদের ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ছে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই শিক্ষার্থীরা দ্রুত সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবিতে আন্দোলনে নেমেছে। কিন্তু সরকার শিক্ষার্থীদের কথা না ভেবে আজ যে ঘোষণা করল তা কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।’

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন – ‘ইতিমধ্যে শিক্ষর্থীদের চাপে কিছু বিশ্ববিদ্যালয় ফাইনাল ইয়ার এবং মাস্টার্সের পরীক্ষা নেয়া শুরু করেছিল, শিক্ষা মন্ত্রী সেসব পরীক্ষা স্থগিতের ঘোষণা দেন। এভাবে হঠাৎ করে পরীক্ষা স্থগিতের ফলে লক্ষ লক্ষ শিক্ষার্থী আরও বিপাকে পড়ল। হল না খুলে এসকল পরীক্ষা শুরু করায় শিক্ষার্থীরা মেসে, বাসা ভাড়া করে অনিরাপদে বসবাস করে আসছিল। ইতিমধ্যে বরিশাল, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপর স্থানীয় গুন্ডারা হামলা করেছে। ফলে এ পরিস্থিতিতে দ্রুত হল খুলে স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করা উচিত ছিল। কিন্তু উল্টো আরও যেসকল পরীক্ষা চলছিল তাও স্থগিত করা হল। সরকার করোনার অজুহাতে যেভাবে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে তা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। তাই শিক্ষামন্ত্রীর ঘোষণা দেশের সকল ছাত্রসমাজ ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করছে।’

নিজেদের অধিকার আদায়ে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানিয়ে নেতৃবৃন্দ ছাত্রসমাজের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন- ‘অবিলম্বে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং আবাসিক হল খুলে দেয়ার দাবিতে লাগাতার ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলুন। আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দিতে বাধ্য করতে হবে।’


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 181
    Shares