রবিবার, মার্চ ৭
শীর্ষ সংবাদ

বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চের আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ, মুনাফা শিকারীদের কাছে সব কিছুই পণ্য হয়ে গেছে

এখানে শেয়ার বোতাম

বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চ আয়োজিত ‘বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি, দূষণ ও পরিবেশ বিপর্যয় – আঞ্চলিক ও জাতীয় ক্ষেত্রে প্রভাব ও করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভা শুক্রবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে অনুষ্ঠিত হয়।

বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চের সমন্বয়ক ইমরান হাবিব রুমন এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আলোচনা করেন অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, ভারতের অধ্যাপক শুভাশিস মুখোপধ্যায়, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড রাজেকুজ্জামান রতন, ভারতের ডাঃ ভাসুদেব কুরু প্রসাদ, নেপালের তিলকরাজ ভান্ডারী, শ্রীলংকার শানিকা হাসিনি সিলভা। সভা পরিচালনা করেন প্রকৌশলী সুব্রত সরকার।

আলোচনা সভায় অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, সরকার একদিকে পরিবেশ বিপর্যয়ের কথা বলে আন্তর্জাতিক মহলের সহযোগিতা নিচ্ছে অন্যদিকে দেশের অভ্যন্তরে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নামে সুন্দরবন বিনাশী তৎপরতা চালাচ্ছে। বিশ্বব্যাপী যে দেশগুলো পরিবেশ বিপর্যয় ঘটায় তারাই আবার সহযোগিতার নামে ত্রাণ তৎপরতা চালায়। এদের মুনাফালোভী তৎপরতার কারণে মাটি, বায়ু, পানি, বাতাস এবং মানুষের ভবিষ্যৎ আজ হুমকীর কবলে।

ভারতের সাইন্স কমিউনিকেটরস ফোরামের ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক শুভাশিস মুখোপাধ্যায় বলেন, একদিকে বিশ্বের উষ্ণতা বৃদ্ধির বিপদের কথা বলে দৃষ্টিকে অন্যদিকে ঘুরিয়ে এরা ব্যবসার নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরি করছে। এই অপতৎপরতার বিরুদ্ধে যুক্তির লড়াই পরিচালনা করা দরকার।

বাসদ নেতা রাজেকুজ্জামান রতন বলেন, মুনাফা শিকারীদের কাছে সব কিছুই পণ্য হয়ে গেছে। নদী, পানি, কৃষি, বন, সমুদ্র সব কিছুই তাদের লুটপাটের ক্ষেত্র। প্রকৃতি ও পরিবেশ রক্ষার আন্দোলনকে শোষণ লুণ্ঠন প্রতিরোধের আন্দোলনে পরিণত করার তিনি আহ্বান জানান।

নেপালের তিলকরাজ ভান্ডারি বলেন, নেপালের হিমালয় থেকে তরাই সর্বত্র আজ পরিবেশ বিপর্যয়ের থাবা বিস্তৃত। প্রাকৃতিক দুর্যোগের সাথে মানুষের লোভ মিলে বিশ্ব আজ বিপজ্জনক স্থানে পরিণত হয়েছে।

শ্রীলংকার শানিকা হাসিনি সিলভা বলেন, সমুদ্রের উষ্ণতা বৃদ্ধি শ্রীলংকার জন্য হুমকী হয়ে দাঁড়িয়েছে। শ্রীলংকার কৃষি পরিবেশ ধ্বংস হলে পুঁজিপতিদের কিছু হবে না বরং উদ্ধাস্তু হয়ে পড়বেন দেশের মানুষ।

সভাপতির বক্তব্যে ইমরান হাবিব রুমন প্রকৃতি ও পরিবেশ রক্ষার আন্দোলনে আঞ্চলিক সহযোগিতা বৃদ্ধির মাধ্যমে বুদ্ধিবৃত্তিক ও সাংগঠনিক তৎপরতা বাড়ানোর আহ্বান জানান।


এখানে শেয়ার বোতাম