শনিবার, জানুয়ারি ১৬

বাসদ (মার্কসবাদী) গাইবান্ধা জেলার কর্মীসভা অনুষ্ঠিত

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 178
    Shares

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:: বাসদ(মার্কসবাদী) গাইবান্ধা জেলার উদ্যোগে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত। কর্মীসভায় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কমরেড শুভ্রাংশু চক্রবর্ত্তী।

আজ শুক্রবার (১৩ মার্চ) গাইবান্ধা জেলা পরিষদ মিলনায়তন সকাল ১১ টা থেকে সন্ধা পর্যন্ত এই কর্মীসভা চলে।

কর্মীসভায় এডভোকেট নওশাদুজ্জামান নওশাদের সভাপতিত্বে আর আলোচনা করেন , সাইফুজ্জামান সাকন, মনজুর আলম মিঠু প্রমুখ।

কর্মীসভায় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের লুটেরা শাসকদের তীব্র শোষণে শ্রমজীবী মানুষ আজ দিশেহারা। একটি কার্যকর লড়াই গড়ে তোলার জন্য শক্তিশালী পার্টি গড়ে তুলতে ব্যর্থ হচ্ছি। এর কারণ আমরা অনুসন্ধান করছি। ১৯৮০ সালে আমরা স্লোগান দিলাম- জীবনের সর্বক্ষেত্রব্যাপী সংগ্রাম গড়ে তুলবো। যৌথ নেতৃত্ব গড়ে তুলব, পেশাদার বিপ্লবী গড়ে তুলবো। কিন্তু আমরা পারিনি। এজন্য পার্টি হয়েও গড়ে উঠিনি। একটা সঠিকতা নির্ণয়ের জন্য যে জ্ঞানের পরিমণ্ডল এবং বিতর্ক পরিচালনার পদ্ধতি আমাদের আয়ত্ত্ব করা প্রয়োজন তাও আমরা গড়ে তুলতে পারিনি। বাসদ(মার্কসবাদী) গঠনের ৪ বছর পর মূল্যায়ন করতে গিয়ে আমরা দেখেছি, আমরা বিপ্লবী দল গড়ার আকাঙ্ক্ষার স্তরেই আছি কিন্তু দল গড়ার সঠিক সূচনা করিনি। এই কথাটি আমরা বলতে চেয়েছি।

কমরেড শুভ্রাংশু চক্রবর্তী বলেন, আমরা সবাই মিলে আবার নতুন করে শুরু করার আহ্বান জানিয়েছি। এইযৌক্তিক বিতর্ক সমাধান করতে পারেনি। এখন বলা হচ্ছে পদ পদবীর জন্য আমরা বিতর্ক করছি। তাহলে ১৬ জন কি আমাকে প্রতিষ্ঠত করার জন্য লেখা জমা দিয়েছিল? নিশ্চয় আমার দায় আছে। কেন এমন হলো? কারণ পার্টি গড়ে তোলার যে উপলব্ধি তা আমাদের মধ্যে ছিল না, আপনাদের মধ্যেও নিয়ে যেতে পারিনি। বাসদ(মার্কসবাদী) গঠনের শুরুতে আমার উপলব্ধি এরকম ছিল না। আমি ভেবেছি, অনেক সীমাবদ্ধতা নিয়ে আমরা বিপ্লবী দল হিসেবে যাত্রা করেছি। কিন্তু শুরুর কিছু দিনের মধ্যেই এমন কিছু অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়েছি, এগুলো ব্যাখ্যা করে পেটিবুর্জোয়া র‍্যাডিক্যাল বলেছি। আগামীতে ৩২ বছর এবং ৭ বছরের মূল্যায়ণ করে ব্যাপক আলাপ আলোচনা মধ্যদিয়ে আমরা বিপ্লবী দল গড়ার সংগ্রাম এগিয়ে নেয়ার আকাঙ্ক্ষা ব্যক্ত করছি।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 178
    Shares