শনিবার, নভেম্বর ২৮

বাসদের অক্সিজেন ব্যাংকে হামলা ও উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে বাসদের বক্তব্য

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 8K
    Shares

বরিশাল প্রতিনিধি:: বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ বরিশাল জেলার আহবায়ক ইমরান হাবিব রুমন ও সদস্য সচিব ডাঃ মনীষা চক্রবর্তী আজ এক যুক্ত বিবৃতিতে বলেন, বেশ কিছুদিন ধরেই একটি প্রভাবশালী মহল বরিশালে বাসদ এর করোনাকালীন সেবা কার্যক্রম উচ্ছেদে ষড়যন্ত্র করছে ও অপপ্রচার চালাচ্ছে। সর্বশেষ গতকাল বাসদ এর করোনাকালীন সেবা ক্যাম্পে হামলার ঘটনায় বরিশালসহ সারা দেশের মানুষ স্তম্ভিত হয়েছে। সর্বশেষ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাসদ এর করোনাকালীন সেবা ক্যাম্প অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত হয়।

নেতৃবৃন্দ বলেন, বরিশালে করোনা মহামারী প্রতিরোধে বাসদ ফেব্রুয়ারি মাস থেকে সচেতনতা মূলক সেমিনার- লিফলেট বিতরণ করেছে। মার্চ মাস থেকে বাসদ দশ সহস্রাধিক মানুষের মধ্যে মাস্ক, জীবাণুনাশক হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হ্যান্ড ওয়াশ ও ব্লিচিং সল্যুশন বিতরণ করেছে। বাসদ এর মানবতার বাজার থেকে বিশ হাজার এর ও অধিক মানুষকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে। মার্চ মাস থেকে বাসদ এর ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস এর মাধ্যমে সহস্রাধিক রুগীকে হাসপাতালে পৌঁছে দেয়া হয়েছে। সর্বশেষ জুন মাস থেকে করোনা রোগীদের জীবন বাঁচাতে বাসদ এর উদ্যোগে “অক্সিজেন ব্যাংক” চালু করা হয়েছে যেখান থেকে প্রায় শতাধিক মুমূর্ষু রোগীর বাড়িতে জীবন রক্ষাকারী অক্সিজেন সরবরাহ করা হয়েছে। এছাড়া জুন মাস থেকে বাসদ এর উদ্যোগে “করোনা অ্যাম্বুলেন্স” চালু করা হয়েছে যা বরিশালে করোন রোগী পরিবহনে নির্ধারিত একমাত্র অ্যাম্বুলেন্স।

নেতৃবৃন্দ বলেন, একটি প্রভাবশালী মহল গতকালের হামলার আগে থেকেই প্রচার করছে যে বাসদ এর করোনা সেবা ক্যাম্প থেকে করোনা ছড়াচ্ছে। অথচ বাস্তবতা হল সঠিকভাবে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অনুসারে স্বেচ্ছাসেবকদের প্রশিক্ষণ দেয়ার ফলে এখন পর্যন্ত বাসদের কার্যক্রমে যুক্ত প্রায় শতাধিক স্বেচ্ছাসেবকের একজনও করোনা আক্রান্ত হয়নি। বরং বাসদ এর পক্ষ থেকে বরিশালের প্রায় ৪০টি সংগঠনকে পিপিই পরিধান ও খোলা, করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি, করোনা রোগী দাফন বা সৎকার পদ্ধতি নিয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। বরিশালের সর্বত্র, এমনকি ১৭ নং ওয়ার্ডেই অনেকগুলি ক্লিনিক,ডায়াগনস্টিক সেন্টার বা হাসপাতাল আছে যেখানে নার্স-চিকিৎসকরা করোনা আক্রান্ত হয়েছে। তাতে কি সেসব হাসপাতাল বা সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে?

করোনা রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ করে তাদের জীবন বাঁচানোর মত একটি কাজকে যারা করোনা ছড়ানোর ধুয়া তুলে বন্ধ করতে চান তাদের প্রকৃত উদ্দেশ্য নিয়ে অবশ্যই প্রশ্ন তোলা যায়।

নেতৃবৃন্দ বলেন, বরিশালে করোনা মহামারী প্রতিরোধে বাসদ এর কার্যক্রম বরিশালে, সারাদেশে এমনকি সারা বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছে। এমতাবস্থায় বিভিন্ন প্রভাবশালী মহলে বিষয়টি নিয়ে ঈর্ষা তৈরি হয়েছে এবং সেকারণেই এই অপপ্রচার ও হামলার সূত্রপাত হয়েছে। বাসদের কার্যক্রম নিয়ে এলাকার ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা বলেছেন বাসদ এর কার্যক্রম নিয়ে এলাকার মানুষ বিক্ষুব্ধতা প্রকাশ করেছে। নেতৃবৃন্দ এ বক্তব্যকে চ্যালেঞ্জ করে বলেন, এলাকার বেশিরভাগ মানুষ বাসদের এ করোনাকালীন সেবা নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন এবং যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন। রাজনৈতিক ভাবে যারা বাসদের কার্যক্রমে ঈর্ষান্বিত অনুভব করেন তারা বাদে ১৭ নং ওয়ার্ড এবং বরিশালের সচেতন মানুষ বাসদ নেতৃবৃন্দকে তাদের কাজের জন্য আন্তরিকভাবে উৎসাহ ও সহায়তা প্রদান করেছেন।

নেতৃবৃন্দ বলেন, করোনা মহামারী প্রতিরোধে সকল জনসম্পৃক্ত রাজনৈতিক -সামাজিক সংগঠনেরই উচিত মানুষের পাশে দাঁড়ানো। বাসদ দলীয়ভাবে উদ্যোগ নিয়ে করোনা প্রতিরোধে কাজ করলেও এ কর্মকাণ্ড থেকে দল-মত নির্বিশেষে বরিশালের লক্ষাধিক মানুষ উপকৃত হয়েছেন।

নেতৃবৃন্দ বাসদের এ মানবিক কার্যক্রম বন্ধে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের নিন্দা জানান ও পূর্বের মত ভবিষ্যতেও করোনা প্রতিরোধের কার্যক্রমে বরিশালবাসীর সহায়তা কামনা করেন।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 8K
    Shares