মঙ্গলবার, মে ১৮
শীর্ষ সংবাদ

বার কাউন্সিল পরীক্ষা পদ্ধতি সংস্কার দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 956
    Shares

অধিকার ডেস্ক:: বার কাউন্সিল পরীক্ষা পদ্ধতি সংস্কার করে বার কাউন্সিলের এডভোকেট তালিকাভুক্তির প্রক্রিয়া গতিশীল করার দাবি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন।

আইনজীবী সনদ অধিকার আন্দোলনের পক্ষে আহবায়ক সুজন বিপ্লব প্রধানমন্ত্রী বরাবর এই আবেদন জানিয়েছেন। আবেদনটি নিম্নে তুলে ধরা হলো:

যথাযথ সম্মান প্রদর্শনপূর্বক জানানো যাচ্ছে যে, আমরা বার কাউন্সিলের পরীক্ষার্থী এবং বার কাউন্সিলের দীর্ঘ, সময়সাপেক্ষ ও জটিল পরীক্ষা পদ্ধতির কারণে আমাদের জীবন উষ্ঠাগত প্রায়। এমতাবস্থায়, এরূপ পরীক্ষা পদ্ধতির সংস্কারে আপনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি। অন্যথায়, আমাদের তথা আইনের ছাত্রদের ভবিষ্যৎ জীবন হুমকির মুখে পড়বে। আইনের ছাত্র এবং বার কাউন্সিল পরীক্ষার্থীদের সমন্বয়ে গঠিত ‘আইনজীবী সনদ অধিকার আন্দোলন’ বার কাউন্সিলের পরীক্ষা পদ্ধতি সংস্কারে নিম্নোক্ত বিকল্প পদ্ধতিসমূহ প্রস্তাব করছেঃ

১। কারিগরি ও ব্যবহারিক শিক্ষা হিসেবে আইন স্নাতকদের বিশেষায়িত আইন পেশায় প্রবেশে প্রতিবন্ধকতা নিরসনে জটিল, ব্যয়বহুল, সময়সাপেক্ষ, ছাঁটাইমুখী ও হয়রানিমূলক তিন ধাপের পরীক্ষা বাতিলপূর্বক অবিলম্বে সকল আইন শিক্ষানবিশের পর্যায়ক্রমে আইনজীবী সনদ প্রদানের নিশ্চয়তা বিধানে অনলাইন নিবন্ধন চালু, নিবন্ধিত শিক্ষানবিশগণের এক বছরের মধ্যে নির্দিষ্ট তারিখে সৃজনশীল পদ্ধতিতে আইনজীবী অন্তর্ভুক্তিকরণ পরীক্ষা, পুনপরীক্ষণ ব্যবস্থা ও সনদ প্রদান সম্পন্ন করা অন্যথায় বিকল্প পদ্ধতিতে মূল্যায়নের মাধ্যমে আইনজীবী সনদ প্রদানের নিশ্চয়তা বিধান করা।

২। শিক্ষানবিশকালে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের তত্ত্বাবধানে নির্দিষ্ট সংখ্যক প্রশিক্ষণ, কর্মশালা, সেমিনার ও অ্যাসাইনমেন্টে অংশগ্রহণমূলক সৃজনশীল পরীক্ষা অন্যথায় বিকল্প পদ্ধতিতে মূল্যায়ন সাপেক্ষে আইনজীবী সনদ প্রদান করা। প্রতি জেলায় পরীক্ষা কেন্দ্র ও পরীক্ষার্থীদের নিজ জেলায় পরীক্ষায় অংশগ্রহণের ব্যবস্থা করা।

৩। বাংলাদেশ বার কাউন্সিল ও বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সমন্বয় সভার মাধ্যমে নির্দিষ্ট মেয়াদে আইনে স্নাতক পর্যায়ে কাম্য ছাত্রসংখ্যা নির্ধারণ করা অথবা বিশেষ প্রতিষ্ঠান গঠন করে আইনের ছাত্র সংখ্যা, সিলেবাস ও পেশাগত সংকট নিরসনে সমন্বয়ের ব্যবস্থা করা।

৪। মামলাজট নিরসন, আইন সংশ্লিষ্ট সেবার মানোন্নয়ন ও জনতার নিকট সেবা পৌঁছাতে উপজেলা পর্য়ায়ে আদালত চালু, গ্রাম-আদালত পর্যন্ত পর্যাপ্ত বিচারক-কর্মকর্তা-কর্মচারি নিয়োগ ও আইনজীবীদের কার্যক্রম বিস্তৃত করা। বিজ্ঞ আদালতে মামলা পরিচালনার নির্দিষ্ট স্তর পর্যন্ত আইন শিক্ষানবিশদের অংশগ্রহণের ব্যবস্থা করা। বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের তত্ত্বাবধানে অন্তর্ভূক্তিকরণের পূর্ব পর্যন্ত শিক্ষানবিশদের ন্যূনতম সম্মানী নির্ধারণ ও সংশ্লিষ্ট আইনজীবী সমিতির মাধ্যমে প্রাপ্তি নিশ্চিত করা।

অতএব, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট আমাদের আকুল আবেদন এই যে, আপনার সহৃদয় নির্দেশে বার কাউন্সিলের এডভোকেট তালিকাভুক্তির প্রক্রিয়া গতিশীল হয়, যাতে এগিয়ে যায়, সেজন্য যথাযথ ব্যবস্থা নিতে আপনার মর্জি হয়৷


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 956
    Shares