বুধবার, নভেম্বর ২৫

বর্ণবাদী ট্রাম্প প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিশ্ববাসী সোচ্চার হোন : খালেকুজ্জামান

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক:: সাম্প্রতিক করোনা দূর্যোগে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিককে হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ট্রাম্প প্রশাসনের বর্ণবাদী আচরণের বিরুদ্ধে চলমান আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান।

আজ ১ জুন ২০২০ সংবাদপত্রে দেয়া এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, “সারাবিশ্ব আজ যখন করোনা মহামারিতে আক্রান্ত তখন বিশ্বের সবচেয়ে বৃহৎ গণতান্ত্রিক দেশ বলে দাবিদার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ঘটনায় বিশ্বের প্রতিটি গণতন্ত্রমনা নাগরিক ক্ষুদ্ধ। ইতিমধ্যে কোভিড-১৯ মহামারিতে আমেরিকার এক লাখের বেশি মানুষ মারা গেছে। করোনায় সেদেশের কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিকদের মধ্যে প্রাণহানির সংখ্যা সর্বোচ্চ। কিন্তু এই মৃত্যুঝুঁকি কমাতে সেদেশের সরকারের দিক থেকে বিশেষ কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। করোনা ইস্যুতে সরকারের তরফ থেকে লাগাতার বর্ণবাদী নীতি অনুসরণ করা হচ্ছে বলে কৃষ্ণাঙ্গরা যখন বিক্ষুব্ধ তখন শ্বেতাঙ্গ এক পুলিশ কর্মকর্তার হাতে জর্জ ফ্লয়েড নামের এক কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিকের নির্মমভাবে খুন হাওয়ার ঘটনায় ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে পুরো আমেরিকা উত্তাল হয়ে উঠেছে। ঘটনার পর প্রায় এক সপ্তাহ ধরে বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। এরইমধ্যে সেখানে ১৬টা অঙ্গরাজ্যের ২৫টার বেশি শহরে আন্দোলন চলছে। এই আন্দোলন বিক্ষোভ থামাতে সেখানে জাতীয় নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন ও কার্ফ্যু জারী করা হয়েছে।

বিবৃতিতে কমরেড খালেকুজ্জামান আরও বলেন, “করোনা মহামারী প্রতিরোধে ব্যর্থ ট্রাম্প প্রশাসন তার বর্ণবাদী চরিত্র নিয়ে আজ সেদেশের জনগণ ও সারাবিশ্বের গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছে। এই গণবিরোধী চেহারা উন্মোচিত হওয়ায় এবং আন্দোলন দমাতে আজ সেদেশের বামপন্থী শক্তিকে দায়ী করা হচ্ছে। বর্ণবাদ আজ যেখানে সভ্যসমাজে ধিকৃত ও ইতিহাসের দাসপ্রথার কলঙ্ক হিসেবে বিবেচিত তখন ট্রাম্প প্রশাসন একের পর এক এই অসভ্য আচরণ করে চলেছে। এর বিপরীতে কার্ফ্যু ভেদ করে সিয়াটল থেকে নিউইয়র্ক পর্যন্ত হাজার হাজার মানুষের প্রতিবাদ সংঘটিত হচ্ছে।

করোনা মহামারীতে এখনো পর্যন্ত বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ঘটেছে আমেরিকায়। অথচ সবচেয়ে বেশি সামরিক বাজেটের এইদেশে করোনা মোকাবিলায় বরাদ্দ পেন্টাগনের এক ঘন্টার বরাদ্দের চেয়েও কম। এই চিত্রই আজ প্রমাণ করে, বিশ্বের সবচেয়ে ধনী দেশ আমেরিকাতেও দরিদ্র মানুষ কতটা অসহায়। পুঁজিবাদ যত শক্তিশালী হয়, মুনাফা যত তীব্র হয় সাধারণ মানুষের উপর এর শোষণ তত বেশি হয়, মনুষ্যত্ব-মানবিকতা তত ধ্বংসের মুখে পড়ে।”

তিনি অবিলম্বে যুক্তরাষ্ট্রে এই হত্যাকা-ের সাথে জড়িত পুলিশ সদস্যদের শাস্তি এবং সেখানে ট্রাম্প প্রশাসন ও বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনের প্রতি সংহতি জানিয়ে বিশ্ব বিবেককে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য গত ২৫ মে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের বৃহত্তম শহর মিনিয়াপলিসে জর্জ ফ্লয়েড (৪৬ বছর) নামে এক কৃষ্ণাঙ্গকে পুলিশ নির্মমভাবে হত্যা করে। ওয়াশিংটনপোস্টে হত্যার ভিডিও প্রকাশিত হওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেটি ভাইরাল হয়। এরপর প্রথমে কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠে যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের বৃহত্তম শহর মিনিয়াপলিস। পরবর্তীতে আমেরিকার প্রায় ৩০টি অঙ্গরাজ্যে এই আন্দোলন দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ে।


এখানে শেয়ার বোতাম