বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৮

পদ্মার পাড়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য হবেই: তাপস

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 10
    Shares

অধিকার ডেস্ক:: পদ্মার পাড়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ কেউ প্রতিহত করতে পারবে না বলে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস।

তিনি বলেছেন, ‘সারা পৃথিবীতে সব জাতির পিতার ভাস্কর্য রয়েছে। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যও হবে। পদ্মাসেতুর ওপরে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য হবে, কেউ দমাতে পারবে না।’

মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সামনে মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক শক্তিবিরোধী এক মানববন্ধনে অংশ নিয়ে তিনি এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

বঙ্গবন্ধু ও সংবিধান অবমাননার অভিযোগে হেফাজতে ইসলামের আমির জুনাইদ বাবুনগরী ও যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের গ্রেফতারসহ সাত দফা দাবিতে সামাজিক, সাংস্কৃতি ও পেশাজীবীদের ৬০টি সংগঠন মানববন্ধনটি আয়োজন করে। রাজধানীর মৎস্য ভবন, ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, শাহবাগ মোড়, ছবির হাট বিপরীত দিক থেকে ঢাকা ক্লাব ও ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের বিপরীত দিকের রাস্তা পর্যন্ত ওই মানববন্ধন বিস্তৃত হয়।

মানববন্ধনে ডিএসসিসি মেয়র বলেন, ‘আজকে যারা মৌলবাদী বক্তব্য রাখে, জাতির পিতার প্রতি কটূক্তি করে, তারা হয়তো ভুলে গেছে, তারা মনে করেছে, করোনার কারণে আমরা বুঝি সবাই দমে গেছি। বাঙালি জাতি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়, জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা এখনো এই বাংলাদেশে জীবিত আছি। আমাদের শেষ বিন্দু, শেষ রক্ত থাকা পর্যন্ত যেকোনো মূল্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে আমরা জাগ্রত রাখব ইনশাল্লাহ।’

তিনি বলেন, ‘যারা ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করে, তারা ভুলে গেছে— এ দেশের সংবিধান দিয়ে গেছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সংবিধানেই রয়েছে, জাতির পিতার বিরুদ্ধে যদি কোনো কটূক্তি করা হয়, কোনো অসম্মান প্রদর্শন করা হয়, তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার। আমি সরকারের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, অবিলম্বে আইনের আওতায় এসব দুষ্কৃতিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হোক।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনারা ভুলে যাবেন না, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সকল শক্তি ঐক্যবদ্ধ আছে। কোনোভাবেই আমরা এই দেশকে মৌলবাদীদের আগ্রাসনে নিতে দিব না। আপনাদের এই চোখ রাঙানি বন্ধ করুন। আমরা শান্ত আছি। কিন্তু আমরা আমাদের চেতনা থেকে এক চুলও সরে যাইনি। এই দেশ শান্তিপ্রিয় দেশ। এই দেশ এখন আর কোনো মৌলবাদীর দেশ না। এই দেশ কালো তালিকাভুক্ত দেশ না। শান্তিপ্রিয় বাঙালিদের আপনারা ভুল বোঝাবেন না।’

মেয়র তাপস বলেন, ‘আপনাদের কথা শুনলে মনে হয়, আপনারাই মুসলমান। আর আমরা সব বিধর্মী। আপনারা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন, আর আমরা মনে হয় নামাজ পড়ি না।’

মানববন্ধনে সূচনা বক্তব্যে ৭ দফা দাবি তুলে ধরেন রুখে দাঁড়াও বাংলাদেশের আহ্বায়ক ও সাংবাদিক আবেদ খান। একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবিরের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, সংসদ সদস্য শাজাহান খান, সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, সম্প্রীতি বাংলাদেশের আহ্বায়ক পীযূষ বন্দোপাধ্যায়, জাসদের একাংশের সাধারণ সম্পাদক শিরিন আখতার, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের নেতা কাজল দেবনাথ, চিকিৎসক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়া, অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসানসহ আরও অনেকে।

মানবন্ধনে আরও অংশ নেন যুবলীগ সভাপতি শেখ ফজলে শামস পরশ, মুক্তিযুদ্ধ গবেষক মুনতাসীর মামুন, বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের সভাপতি সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ, সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন হাবীব, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাশগুপ্তসহ অন্যরা।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 10
    Shares