শনিবার, মে ৮
শীর্ষ সংবাদ

নারী-শিশু ধর্ষণের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে তারুণ্যের প্রতিবাদ

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার প্রতিবেদক :: সারাদেশে নারী-শিশু ধর্ষণের ঘটনা বেড়ে যাওয়ার প্রতিবাদ জানাতে এবং ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের দাবিতে রোববার সারাদেশে রাস্তায় নেমে আসেন স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তারা মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে ধর্ষকদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করার দাবি জানান। এতেই ধর্ষণের মতো সামাজিক ব্যাধি কমে যাবে বলে মনে করেন তারা।

রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, রাজশাহী, নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে এসব কর্মসূচি পালিত হয়।

রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও নটর ডেম বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ষণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে। ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নমুক্ত সমাজ গড়তে দুই দফা প্রস্তাব উত্থাপন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিকেন্দ্রিক সামাজিক-সাংস্কৃৃতিক সংগঠনগুলো।

রোববার রাজু ভাস্কর্যের সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে এসব প্রস্তাব তুলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ব্যান্ড সোসাইটির সভাপতি তানভীর আল ফারাবি বলেন, দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে ৬০ কার্যদিবসের মধ্যে ধর্ষণের বিচার করতে হবে। এর সঙ্গে ধর্ষণে সহযোগীদের কঠোর শাস্তির আওতায় আনা চাই।

তিনি বলেন, প্রচলিত শিক্ষাব্যবস্থায় যৌন শিক্ষার বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত করে ক্লাসে পাঠদানের সময় এ সংক্রান্ত পাঠদান এড়িয়ে যাওয়া বন্ধ করতে হবে। এ ছাড়া সমাজের বিভিন্ন স্তরে নারী-পুরুষের পরস্পরের প্রতি সম্মান এবং ইচ্ছা-অনিচ্ছার মূল্যায়ন সম্পর্কিত প্রচারণা বৃদ্ধি করতে হবে। সর্বোপরি ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির কারণ নির্ণয়ে সামাজিক গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা ও ফল জনস্বার্থে প্রচার করতে হবে।

ডাকসুর কমন রুম ও ক্যাফেটেরিয়া বিষয়ক সম্পাদক বিএম লিপি আক্তার বলেন, মৌলবাদীরা ধর্ষণের কারণ হিসেবে নারীর পোশাককে দায়ী করেন। তাহলে শিশু ধর্ষণের ক্ষেত্রে তারা কী বলবেন?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ট্যুরিস্ট সোসাইটির সভাপতি আসিফ আলম বলেন, তরুণদের মৌনতা ধর্ষকদের যৌনতা বৃদ্ধি করে। তাই ধর্ষণ বন্ধে তরুণ সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে।

নটর ডেম বিশ্ববিদ্যালয়ের মানববন্ধন: শিশুদের সুরক্ষিত ও সুন্দর জীবন সুনিশ্চিত করার দাবিতে মানববন্ধন করেছে নটর ডেম বিশ্ববিদ্যালয়। রাজধানীর আরামবাগে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের সামনে এ কর্মসূচি পালিত হয়। এ সময় উপাচার্য ফাদার প্যাট্রিক ডি গ্যাফনিসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

চট্টগ্রামে ১০টি স্কুল-কলেজের দুই শতাধিক শিক্ষার্থী ধর্ষণের মতো ঘৃণ্য অপরাধের শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের দাবি জানান। রোববার চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে এ প্রতিবাদ কর্মসূচিতে অংশ নেন বাংলাদেশ মহিলা সমিতি উচ্চ বিদ্যালয় (বাওয়া স্কুল), চট্টগ্রাম সরকারি মহিলা কলেজ, ইস্পাহানি পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সরকারি হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজ, সরকারি মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, চট্টগ্রাম আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, কাজেম আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং ওমর গণি এমইএস কলেজ।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সাধারণ শিক্ষার্থীরা রোববার শহীদ মিনারের সামনে মানববন্ধন করেন। পরিসংখ্যান বিভাগের শিক্ষার্থী শামীমা সীমার সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন শামসুন নাহার হলের প্রভোস্ট লায়লা খালেদা আঁখি, সঙ্গীত বিভাগের শিক্ষার্থী বর্ষা চাকমা, ব্যাংকিং বিভাগের লিজা দাশ, লোকপ্রশাসন বিভাগের মাবিয়া পারভিন প্রমুখ।

বরিশাল নগরীর অমৃত লাল দে মহাবিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন করেছেন। কলেজ সংলগ্ন সড়কে অধ্যক্ষ সুভাষ চন্দ্র পালের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য দেন কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য বিজয় কৃষ্ণ দে, সহকারী অধ্যাপক খলিলুর রহমান, সহকারী অধ্যাপক দুলাল মজুমদার, প্রভাষক টুনু রানী কর্মকার, প্রভাষক বৈশাখী চক্রবর্তী, প্রভাষক অনিতা রানী বসু, প্রভাষক লিঙ্কন দাস প্রমুখ।

নারায়ণগঞ্জ জেলার সরকারি তোলারাম কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা ধর্ষণ, মাদক ও যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছেন।

সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবি) মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেছেন শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে সমাবেশে সম্মিলিত সাংস্কৃৃতিক জোটের আহ্বায়ক রাকিব হোসেনের সভাপতিত্বে ট্যুরিস্ট ক্লাবের সভাপতি সোহান তালুকদার, আজ-মুক্তমঞ্চের সাধারণ সম্পাদক সুমাইয়া আলম চৌধুরী, থিয়েটার সাস্টের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল শুভ এবং সিএসই বিভাগের ছাত্র ফয়সাল আহমেদ বক্তব্য রাখেন।

মৌলভীবাজার শেখ বোরহান উদ্দিন (রহ.) ইসলামী সোসাইটির (বিআইএস) উদ্যোগে স্থানীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন হয়েছে। বিআইএস চেয়ারম্যান এম মুহিবুর রহমানের সভাপতিত্বে ও মহাসচিব মিজানুর রহমান রাসেলের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন- মৌলভীবাজার সম্মিলিত সামাজিক উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি খালেদ চৌধুরী, জেলা যৌন হয়রানি নির্মূলকরণ নেটওয়ার্কের সভাপতি রাশেদা খাতুন প্রমূখ।


এখানে শেয়ার বোতাম