রবিবার, ফেব্রুয়ারি ২৮
শীর্ষ সংবাদ

দেশে বর্তমানে চরম অরাজকতা চলছে : সিলেটের সিপিবির পদযাত্রা নেতৃবৃন্দ

এখানে শেয়ার বোতাম

সিলেট প্রতিনিধি :: জনগণের ভোটাধিকার, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় দখলমুক্ত, রেল-সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ, জাতীয় ন্যুনতম মজুরী ১৬ হাজার টাকা নির্ধারণ, ভূমিহীন ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ মজুরদের জন্য রেশনিং ব্যবস্থা চালু, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধগতি রোধ, ধর্মীয় সংখ্যালঘু ও আদিবাসীদের উপর জুলুম-নির্যাতন বন্ধ, ভারতের সাথে জাতীয় স্বার্থবিরোধী অসমচুক্তি বাতিলসহ ১৭ দফা দাবিতে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পাটির (সিপিবি) ডাকে দেশব্যাপী পদযাত্রা কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষিত এ কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ ৩০ নভেম্বর শনিবার সিপিবি সিলেট জেলাধীন জালালাবাদ থানা শাখার উদ্যোগে পদযাত্রা কর্মসূচি পালিত হয়। সকাল ১০টায় পাঠানটুলা পয়েন্টে পথসভার মাধ্যমে এ কর্মসূচি শুরু হয়। সিপিবির নেতা-কর্মিবৃন্দসহ বিভিন্ন গণসংগঠনের নেতৃবৃন্দ লাল পতাকা এবং জাতীয় ও স্থানীয় বিভিন্ন দাবি সংবলিত প্লেকার্ড হাতে নিয়ে পদযাত্রায় অংশ নেন। পদযাত্রা চলাকালে ১৭ দফা দাবিসংবলিত লিফলেট বিতরণের ফাঁকে ফাঁকে বিভিন্ন স্থানে পথসভা অনুষ্ঠিত হয়।

সবশেষে মইয়াচর বাজারে পুলিশের বাঁধা উপেক্ষা করে পথসভার মাধ্যমে ঐদিনের মতো পদযাত্রা কর্মসূচি সমাপ্ত হয়।

এসব পথসভায় বক্তারা বলেন, দেশে বর্তমানে চরম অরাজকতা চলছে। পেঁয়াজ-চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের লাগামহীন মূল্য বৃদ্ধিতে সাধারণ খেটেখাওয়া মানুষজন দিশেহারা হয়ে পড়ছে। সিন্ডিকেট করে ক্ষমতাসীনদের অনুগতরা কৃত্রিমভাবে মূল্য বৃদ্ধি করে জনসাধারণের পকেট থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। অন্যদিকে দেশের টাকা বিদেশে পাচার করে সেকেন্ড হোম বানাচ্ছে, বিদেশি ব্যাংকে টাকার পাহাড় গড়ে তুলছে। এভাবে দেশকে বর্তমানে লুটপাটের অভয়ারণ্যে পরিণত করেছে। একদিকে গুটিকয়েক মানুষের হাতে হাজার হাজার কোটি অবৈধ টাকা, অন্যদিকে কর্মসংস্থানের অভাবে লক্ষ লক্ষ শিক্ষিত যুবক হতাশায় ভুগছে। এভাবে বৈষম্যের দেয়াল তুলে সাধারণ মানুষের জীবনকে বিপন্ন করে তোলা হচ্ছে। কিন্তু কোনো কিছুতেই সরকারের ভ্রুক্ষেপ নেই, নির্বিকারভাবে শুধু বড় বড় বুলি আওড়াচ্ছে। এমন অবস্থায় কমিউনিস্ট ঐক্য গড়ে তোলার কোনো বিকল্প নেই। শোষণমুক্ত সাম্যবাদী সমাজব্যবস্থা গড়ে তোলার মাধ্যমেই কেবল এধরনের ফ্যাসিবাদী প্রবণতা থেকে দেশকে রক্ষা করা এবং শ্রমিক-কৃষক-মেহনতি মানুষের মুক্তি নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

এছাড়াও কৃষকদের সকল কৃষিপণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করা, ক্ষেতমজুরদের বছরব্যাপী কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা গ্রহণ, স্থানীয় টুকেরবাজারে একটি হাসপাতাল নির্মাণ, তেমুখী পয়েন্ট থেকে বাদাঘাট-শীবেরবাজার-এয়ারপোর্ট রাস্তা চার লেনে রূপান্তর, আবাসিক গ্যাস সংযোগ প্রদান পুনরায় চালু, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে আধুনিক প্রযুক্তিভিত্তিক যুগোপযোগী নতুন নতুন কোর্স চালু ও গবেষণার জন্য উপয্ক্তু ল্যাব স্থাপন করা, সিলেট-আখাউড়া বিদ্যমান রেলপথ সংস্কার করে ডাবল লাইনে উন্নীতকরণ, বাদাঘাটে প্রস্তাবিত ‘সিলেট বিভাগীয় যাদুঘর’ নির্মাণ, এমএজি ওসমানী বিমানবন্দরকে স্বয়ংসম্পূর্ণ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হিসেবে চালু ও বিভিন্ন রুটে বিমানের ফ্লাইট বৃদ্ধিসহ সিলেট থেকে কক্সবাজার রুটে বিমান পরিচালনার জন্য বক্তারা জোর দাবি জানান।

পথসভাগুলোতে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সিপিবি সিলেট জেলা কমিটির সাবেক সভাপতি সংগ্রামী রাজনীতিবীদ কমরেড বেদানন্দ ভট্টাচার্য, সিপিবি সিলেট জেলা কমিটির বর্তমান সভাপতি হাবিবুল ইসলাম খোকা, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আনোয়ার হোসেন সুমন, সহ-সাধারণ সম্পাদক খায়রুল হাছান, জেলা নেতা ডা. বীরেন্দ্র চন্দ্র দেব, সিপিবি কোতোয়ালী থানা শাখার সম্পাদক সাথী রহমান, সিপিবি শাহপরান থানা শাখার সম্পাদক তুহিন কান্তি ধর, সিপিবি জালালাবাদ থানা শাখার সম্পাদক নিরঞ্জন দাস খোকন, সিপিবি নেতা কাঞ্চন মিয়া, বিধান দেব চয়ন, যুবনেতা রশীদ আহমদ রাশেদ, সন্দ্বীপ দেব, ছাত্র ইউনিয়ন সিলেট জেলা সংসদের সভাপতি সরোজ কান্তি, সাধারণ সম্পাদক নাবিল এইচ, সিলেট মহানগর সংসদের সভাপতি হাছান বক্ত চৌধুরী কাওছার, বিয়ানীবাজার উপজেলা সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক ইশতিয়াক হিমেল, সিলেট মহানগর সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক মনীষা ওয়াহিদ, ছাত্রনেতা মোহাইমিনুল ইসলাম মাহিন প্রমুখ।


এখানে শেয়ার বোতাম