বৃহস্পতিবার, মে ১৩
শীর্ষ সংবাদ

দিল্লির জেএনইউ-তে জয়ের পথে বামপন্থী ছাত্র সংগঠনগুলো

এখানে শেয়ার বোতাম

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: নয়াদিল্লির জওহরলাল ইউনিভার্সিটির ছাত্র সংসদ নির্বাচনে বাম ছাত্র মোর্চার কাছে ধরাশায়ী সঙ্ঘ পরিবারের ছত্রচ্ছায়ায় থাকা ছাত্র সংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ। আর দিল্লিতে বাম ছাত্রদের এই লড়াইয়ের অন্যতম মুখ বাংলার ঐশি ঘোষ।

ঐশি ঘোষ

শুক্রবার জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় (জেএনইউ) ছাত্রসংসদের ভোটগ্রহণ করা হয়। মোট ভোট পড়ে ৫৭৬২টি। ভোটদানের হারে ৬৭.৯শতাংশ।

শুক্রবার রাত থেকেই ভোট গণনা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও গণনা শুরু হয় শনিবার বিকালের দিকে। এদিনের প্রাথমিক ফলে দেখা যাচ্ছে ছাত্রসংসদের চারটি শীর্ষ পদেই এগিয়ে আছে চারটি বামপন্থী সংগঠন। যা ব্যবধান, তাতে স্পষ্ট, ছাত্র সংসদের সব পদে বিপুল ভোটে জিতছে বামেরা।

সভাপতি পদে এসএফআই-এর হয়ে লড়ছেন দুর্গাপুরের ঐশি। উচ্চমাধ্যমিকের পর দিল্লিতেই একটি কলেজে স্নাতক পড়েন। তারপর স্নাতকোত্তরে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক নিয়ে ভর্তি হন জেএনইউতে। ইতিমধ্যেই তাঁর আগুনে বক্তৃতা এবং স্লোগান দেওয়ার স্টাইল বাম মহলে জনপ্রিয়তা কুড়িয়েছে। অনেকেই বলছেন, কানহাইয়া কুমারের উত্তরসূরী পেয়ে গিয়েছে জেএনইউ।

এসএফআই-এর সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক ময়ূখ বিশ্বাস বলেন, “এটা স্পষ্ট হল, শারীরিক আক্রমণ মনে করে বাম আদর্শকে দমানো যায় না।” প্রেসিডেন্সির প্রাক্তনী ময়ূখ আরও বলেন, “দেশের বহু জায়গায় বাম ছাত্রদের ভোটে লড়তে দেওয়া হচ্ছে না। বাংলায় তৃণমূল যা করছে, সারা দেশে বিজেপি। তবে যেখানে যেখানে ভোট দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে ছাত্রছাত্রীরা, সেখানেই হারছে এবিভিপি। পণ্ডিচেরি থেকে জেএনইউ-সর্বত্র।”

মোট ৪৭৫০টি ভোট গণনার শেষে সভাপতি পদে এসএফআই প্রার্থী ঐশী ঘোষ ১৯৬৬টি ভোট পেয়েছেন। দ্বিতীয় স্থানে বিএপিএস ৯৯৪ এবং তৃতীয় স্থানে রয়েছেন এবিভিপি প্রার্থী। পেয়েছেন ৮৮৯টি ভোট। সহসভাপতি পদে বাম জোটের ডিএসএফ প্রার্থী সাকেত মুন ২৮৮০টি ভোট পেয়েছেন। এবিভিপি প্রার্থী পেয়েছেন ১০৬০টি ভোট। সাধারণ সম্পাদক পদে বামজোটের এআইএসএ প্রার্থী সতীশচন্দ্র যাদব পেয়েছেন ২০৯৬ ভোট। ১০৫৭ ভোট পেয়েছেন বিএপিএসএ প্রার্থী। এবিভিপি প্রার্থী ১০৭৭ ভোট পেয়েছেন। সহ সম্পাদক পদে বাম জোটের এআইএসএফ প্রার্থী মহম্মদ দানিশ ২৭৮৭ ভোট পেয়েছেন। এবিভিপি’র প্রার্থী ১২০১ ভোট পেয়েছেন। সূত্র- গণশক্তি


এখানে শেয়ার বোতাম