বৃহস্পতিবার, মার্চ ৪
শীর্ষ সংবাদ

তুহিন হত্যার বিচার চান শোকে বাকরুদ্ধ মা মনিরা বেগম

এখানে শেয়ার বোতাম

এনামুল কবির(মুন্না) সুনামগঞ্জ ::সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে পিতা চাচাসহ পরিবারের লোকদের হাতে নৃশংসভাবে নিহত শিশু তুহিনের মা মনিরা বেগম বলেন, তুহিনকে তার বাবা খুন করেছে, এটা আমি বিশ্বাস করতে পারছি না। তবে যদি সে এই ঘটনায় জড়িত থাকে তবে তার শাস্তি চাই আমি।

আদরের পুত্রকে হারিয়ে শোকে স্তব্ধ মা মঙ্গলবার রাতে পিত্রালয় একই ইউনিয়নের জকিনগর গ্রামে চলে আসেন। পুত্র শোকে শোকাহত মা বার বার সংজ্ঞা হারাচ্ছেন।

মনিরা বেগম বলেন, গত রোববার রাতে খাওয়া-দাওয়া শেষে বাবার পাশেই ঘুমিয়েছিলো তুহিন। শেষ রাতে পরিবারের লোকদের হাক ডাকে আমার ঘুম ভাঙে। জানতে পারি আমার তুহিনকে পাওয়া যাচ্ছে না। কিছু পরে শুনি আমার নিষ্পাপ ছেলেকে খুন করে লাশ গাছে ঝুলিয়ে রেখেছে। আমার শিশুকে যারা আমার বুক থেকে কেড়ে নিয়েছে আমি তাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চাই।

এদিকে, মঙ্গলবার বিকেলে তুহিন হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তার বাবাসহ তিনজনকে তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে প্রেস ব্রিফিংয়ে তুহিনের খুনের ঘটনার সাথে তুহিনের বাবা ও চাচারা জড়িত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন আমরা খুব দ্রুততম সময়ে খুনের কারণ ও পরিবারের লোকদের জড়িত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করেছি।

পুলিশ সুপার বলেন, তদন্তের স্বার্থে এর বেশি বলা যাবেনা। পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন, খুব শীগ্রই আপনাদের খুনের পুরো বিষয়টি জানানো হবে।

উল্লেখ্য, গত ১৩ অক্টোবর রোববার দিবাগত রাতে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের কেজাউড়া গ্রামে শিশু তুহিনকে হত্যা করে গাছের সঙ্গে মরদেহ ঝুলিয়ে রাখে ঘাতকরা। সোমবার ভোরে গাছের সঙ্গে ঝুলানো অবস্থায় শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় তুহিনের পেটে দুটি ধারালো ছুরি বিদ্ধ ছিল। তার পুরো শরীর রক্তাক্ত, কান ও লিঙ্গ কর্তন করা হয়। তুহিন ওই গ্রামের আব্দুল বাছিরের ছেলে। তুহিন হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার সন্দেহে আব্দুল বাছিরকে আটক করেছে পুলিশ।


এখানে শেয়ার বোতাম