সোমবার, মার্চ ৮
শীর্ষ সংবাদ

ঢাকার দুই সিটির নির্বাচন জানুয়ারির মাঝামাঝিতে

এখানে শেয়ার বোতাম


অধিকার ডেস্ক ::  আগামী বছর জানুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরশনের ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ডিসেম্বরে তফসিল ঘোষণা করে জানুয়ারির তৃতীয় সপ্তাহে একইদিনে দুই সিটিতে ভোট হবে। সবগুলো ভোট কেন্দ্রেই ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হবে।

রোববার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে অনুষ্ঠিত নির্বাচন ভবনে কমিশন সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। বৈঠক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

পরে ইসি কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর সাংবাদিকদের জানান, আইনানুযায়ী আগামী ১৫ নভেম্বর থেকে ঢাকা উত্তর ও ১৮ নভেম্বর থেকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের সুযোগ তৈরি হবে। এরপরে যে কোনও সময়ে তফসিল ঘোষণা করা হবে।

জানুয়ারি মাসের একই দিনে দুই সিটির ভোটগ্রহণের সিদ্ধান্তের কথাও জানান তিনি।

আলমগীর জানান, এছাড়া চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে নির্বাচন আয়োজনের সুযোগ হবে ফেব্রুয়ারিতে। তাই এখন এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

ইসি সচিব বলেন, ডিসেম্বর মাসে জেএসসি, পিইসি ও বিদ্যালয়গুলোর বার্ষিক পরীক্ষা এবং ফেব্রুয়ারি ও পরে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা রয়েছে। এসব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে মধ্য জানুয়ারির পর ভোটগ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

কমিশন সভা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ইসি সচিব জানান, দুই সিটির নির্বাচন পুরোটাই ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) অনুষ্ঠিত হবে। বিদ্যমান ভোটার তালিকার ভিত্তিতে ভোট হবে। আগামী জানুয়ারিতে হালানাগাদ ভোটার তালিকার খসড়া প্রকাশ ও তালিকা চূড়ান্ত করা হবে। তবে নতুন এই ভোটাররা সিটি ভোটে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবেন না।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখানে আইনগত জটিলতার সুযোগ নেই। ২ জানুয়ারির খসড়া তালিকা প্রকাশ হবে। কিন্তু ৩১ জানুয়ারি চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের আগেই ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ভোট শেষ হয়ে যাবে। তাই আইনি কোনও সমস্যা সৃষ্টি হবে বলে তারা মনে করছেন না।

আলমগীর জানান, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন উপযোগী হবে ফেব্রুয়ারি মাসে। এ কারণে ওই সিটির নির্বাচনের বিষয়ে কমিশন এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি। নতুন ভোটার তালিকা দিয়ে চট্টগ্রাম সিটির নির্বাচন করা হবে।

এক সঙ্গে ঢাকার দুই সিটির নির্বাচন ইভিএমে ভোট নেওয়াকে চ্যালেঞ্জ মনে করছেন কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে ইসি সচিব বলেন, এটা অবশ্যই চ্যালেঞ্জ। তবে নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তাদের অভিজ্ঞতা হয়েছে এবং সক্ষমতা আছে, তাতে ভালোভাবেই ইভিএমে ভোটগ্রহণ করা যাবে। এ নির্বাচন আয়োজনের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের চিঠি পেয়েছেন বলেও জানান সচিব।

ইভিএম নিয়ে কোনো রাজনৈতিক দল আপত্তি জানালে তখন কি করবেন জানতে চাইলে সচিব বলেন, এই বিষয়ে কমিশন সিদ্ধান্ত নেবে।


এখানে শেয়ার বোতাম