শনিবার, ফেব্রুয়ারি ২৭
শীর্ষ সংবাদ

ছাত্রদলের সম্মেলন : কাণ্ডারি হতে চান ১১০ জন, আছেন ৩ ছাত্রীও

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক ::  রাজধানীর নয়াপল্টনস্থ বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় সকাল থেকেই খন্ড খন্ড মিছিলে মিছিলে সরগরম । ছাত্রদলের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করতে নেতাকর্মীদের নিয়ে কার্যালয়ে ভিড় করেছেন প্রার্থীরা। এসময় অনেকেই মিছিল সহকারে কার্যালয়ে প্রবেশ করেছেন। সম্মেলন সফলের পাশাপাশি বিএনপি চেয়ারপার্সনের মুক্তির দাবিতে স্লোগান দিয়েছেন তারা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এনি বলেন, আমরা আশা করিনি এত লোক হবে। আমাদের প্রত্যাশার চেয়ে বেশি লোক ফরম নিতে আসছেন। উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়ন ফরম কিনছেন।

পুনঃতফসিল অনুযায়ী বিএনপির ছাত্র সংগঠন ছাত্রদলের ষষ্ঠ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে ১৪ সেপ্টেম্বর (শনিবার)। ছাত্রদলের এ কাউন্সিলকে সামনে রেখে দুদিনে (শনি ও রোববার) মনোনয়নপত্রের ফরম বিক্রি হয়েছে ১১০টি। এর মধ্যে ৪৩ জন সভাপতি এবং ৬৭ জন সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য মনোনয়পত্রের ফরম সংগ্রহ করেছেন।

১২ই সেপ্টেম্বর মধ্যরাত পর্যন্ত প্রার্থীরা ভোটের জন্য প্রচার চালাতে পারবেন। নির্বাচন পরিচালনার জন্য ছাত্রদলের সাবেক নেতা খায়রুল কবির খোকনের নেতৃত্বে সাত সদস্যের নির্বাচন পরিচালনা কমিটি, ফজলুল হক মিলনের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের বাছাই কমিটি এবং শামসুজ্জামান দুদুর নেতৃত্বে তিন সদস্যের আপিল কমিটি গঠন করেছে বিএনপি।

মনোনয়পত্র ফরমের দাম নির্ধারণ করা ছিল ১০০ টাকা। সভাপতি পদে কোনো নারী প্রার্থী না থাকলেও সাধারণ সম্পাদক হতে তিনজন নারী প্রার্থী মনোনয়নপত্র ফরম কিনেছেন। তারা হলেন- বদরুন্নেসা কলেজের নাদিয়া পাঠান পাবন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনসুরা আলম এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডালিয়া রহমান।

প্রার্থীদের মধ্যে কয়েক শ’ নেতাকর্মীর মিছিল নিয়ে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী আমিনুর রহমান আমিন। নিজের প্রার্থীতা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রাজপথের কর্মী হিসেবে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা আমাকে প্রার্থী হতে উৎসাহ দিয়েছেন। এই সম্মেলনকে কেন্দ্র করে সারা দেশে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহ দেখা দিয়েছে। আমাদের লক্ষ্য একটাই, আমরা ছাত্র-জনতা ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনের মাধ্যমে আপোষহীন নেত্রী, গণতন্ত্রের মা বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করে গণতন্ত্রকে মুক্ত করব। সেই প্রত্যয় নিয়েই তারা রাজপথে আছেন বলে জানান এই ছাত্রনেতা।

১৪ সেপ্টেম্বর (শনিবার) বিএনপির ছাত্র সংগঠনটির শীর্ষ দুই নেতা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ওইদিন সারাদেশে ছাত্রদলের ১১৭টি সাংগঠনিক ইউনিটের ৫৮০ জন কাউন্সিলর ভোট দেবেন।

ছাত্রদলের পদপ্রত্যাশী যারা

সভাপতি পদপ্রার্থী : মো. মামুন খান, আমিনুল হাকিম মুন্সি, খলিলুর রহমান, আসাদুল আলম টিপু, আবু জাহান চৌধুরী হিমেল, এম আর আরজ আলী শান্ত, আল আমিন কাউসার, কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, রিয়াজ মো. তানভীর রেজা, মো. ফজলুল হক নিরব, মো. আব্বাস আলী, তানভীর আহমদ খান ইকরাম, জসিম মোল্লা, মো. এরশাদ খান, মো. এহসান মাহমুদ, মোস্তাফিজুর রহমান, মো. জুয়েল মৃধা, মাসুদ রানা, মাহমুদুল হাসান বাপ্পী, হাফিজুর রহমান, এবিএম মাহমুদুল আলম সরদার, সোলায়মান হোসাইন, মো. সুরুজ মন্ডল, মো. ইলিয়াছ।

মো. আজিম উদ্দিন মেরাজ, আশরাফুল আলম ফকির লিংকন, ফজলুর রহমান খোকন, মাইনুল ইসলাম, মো. আবদুল মাজেদ, বিশ্বজিৎ ভদ্র, আল মেহেদি তালুকদার, সাজিদ হাসান বাবু, সিহাবুর রহমান, এস এম আল আমীন, আবদুল হান্নান, মো. আলী হাওলাদার, এসএম আমিনুল ইসলাম, শামীম হোসেন, মো. আল আমিন, আরাফাত বিল্লাহ খান, নজরুল ইসলাম নাহিদ ও জসিম উদ্দিন।

সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী : আমিনুর রহমান আমিন ,সাইদ মাহমুদ জুয়েল, মো. আলাউদ্দিন খান, এম এ কাইয়ুম, মশিউর রহমান রনি, এমদাদুল হক মজুমদার, মানসুরা আলম, মো. হামিদ সাজ্জাদ হোসেন, মো. নাঈম হোসাইন, সিরাজুল ইসলাম, মো. হাসান তানজিল হাসান, শেখ আবু তাহের, মো. তাবিবুর রহমান, এম সাখাওয়াত হোসাইন, ডালিয়া রহমান, মিজানুর রহমান সজীব, আজমীর হোসেন, আমিনুর রহমান আমিন, শাহনেওয়াজ, মুন্সি আনিসুর রহমান, আবদুল মোমেন মিয়া, নাজমুল হক হাবিব, আনিসুর রহমান সুমন, এবিএম জহিরউদ্দিন সোহেল, এন রাকীব জুয়েল, মিজানুর রহমান শরীফ, ওমর ফারুক হিমেল, রিয়াদ, মো. ইকবাল হোসেইন, একরামুল হাই নাঈম, ওমর ফারুক শাকিল চৌধুরী, আবদুল মান্নান, জামিল হোসেন, ইকবাল হোসাইন শ্যামল।

মো. আবুল হাসান চৌধুরী, এ এ এম ইয়াহিয়া, নুরুল ইমরান মজমুদার শিশু, মো. মহিন উদ্দিন রাজু, রাকীবুল ইসলাম রাকিব, আরিফুল হক, আজিজুল হক সোহেল, রাশেদ ইকবাল খান, মো. জোবাইর আল মাহমুদ রিজভী, মোস্তাফিজুর রহমান, সোহেল রানা, মাজেদুল ইসলাম রুম্মন, মাহমুদুল আলম শাহিন, মো. ইউসুফ কামাল জনি, বাবুল আখতার শান্ত, মো. মিজানুর রহমান, নাদিয়া পাঠান পাবন, জাকিরুল ইসলাম জাকির, আশিকুর রহমান সুমন, মো. জহিরুল ইসলাম দিপু, মো. আল মামুন, মো. সাইদুর রহমান সোহেল, মাহতাব উদ্দিন জিমি, জুলহাস উদ্দিন, আতাউর রহমান, কেএমএস মুসাব্বির, কাজী মাজহারুল ইসলাম, মোহাম্মদ আবুল বাশার, আশরাফুল আলম ফকীর লিংকন, আসাদুজ্জামান, সাদেকুর রহমান সাদিক, আশরাফুল আলম, দেলোয়ার হোসেন, সুলায়মান হোসাইন।


এখানে শেয়ার বোতাম