শনিবার, জানুয়ারি ২৩

চাকুরি স্থায়ীকরণের দাবিতে আন্দোলনের ঘোষণা

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 43
    Shares

অধিকার ডেস্ক :: ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মীদের চাকুরি স্থায়ী করার দাবিতে আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছে ‘বাংলাদেশ ন্যাশনাল সার্ভিস একতা কল্যাণ পরিষদ।’

ঘরে ঘরে চাকুরির অঙ্গিকার বাস্তবায়নের নামে প্রধানমন্ত্রীর ‘ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি’কে জাতির সঙ্গে মহাপ্রতারণা বলে অভিহিত করে সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলন এই আন্দোলনের ঘোষণা দেয় ‘বাংলাদেশ ন্যাশনাল সার্ভিস একতা কল্যাণ পরিষদ।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ক্ষমতাসীন দলের ২০০৮ সালের নির্বাচন পূর্ব অঙ্গিকার ‘দিন বদলের সনদ’-এ প্রতি পরিবারে অন্তত একজনকে চাকুরি দেয়ার কথা বাস্তবায়নের নামে ২০১০ সালের মার্চ মাসে কুড়িগ্রামে ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচির উদ্বোধন করেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী। পরবর্তীতে দেশের ৩৭ জেলায় ২ লাখ ৩৮ হাজার নারী-পুরুষকে এই কর্মসূচির আওতায় নিয়োগ দেয়া হয়। প্রশিক্ষণ শেষে বিভিন্ন খাতে তারা যোগদান করে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে ২ বছরের মাথায় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মীদের প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ায় তারা পুনরায় বেকার হয়ে যায়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত থেকে ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মীদের চলমান আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতিম-লীর সদস্য আবদুল্লাহ ক্বাফী রতন, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সভাপতি রাজেকুজ্জামান রতন, গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার, বাংলাদেশ যুব ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক খান আসাদুজ্জামান মাসুম, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক অনিক রায় প্রমুখ। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশের ন্যাশনাল সার্ভিস পরিষদের সভাপতি আতিক হাসান রাজা।

সিপিবি’র সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ক্বাফী রতন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধন করা ‘ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি’ জাতির সঙ্গে মহাপ্রতারণা ভিন্ন আর কিছু নয়। ঘরে ঘরে চাকুরি দেয়ার কথা বলে ঘটা করে প্রকল্প উদ্বোধন যে কেবলমাত্র লোক দেখানো ও প্রহসনমূলক ছিল এই পুনরায় বেকার হয়ে পরা ২ লক্ষাধিক কর্মী তার জ্বলজ্যান্ত প্রমাণ।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান সরকার ২০০৮ সালে দেশের তরুণ প্রজন্মকে কর্মসংস্থানের আশা দেখিয়ে ক্ষমতায় এসে বেকার যুবকদের প্রতি সীমাহীন অবহেলার নজির স্থাপন করেছে। যারা জাতির ভবিষ্যৎ প্রজন্মের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে তারা এর উপযুক্ত জবাব পাবে।

শ্রমিকনেতা রাজেকুজ্জামান রতন বলেন, বেকার হয়ে পরা ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মীরা শুধু অর্থনৈতিকভাবেই ক্ষতিগ্রস্থ হয়নি তারা সামাজিকভাবেও নিগৃহীত হয়েছে। ২ বছরের প্রকল্প কোনোভাবেই সরকার প্রদত্ত চাকুরি বা কর্মসংস্থান হতে পারে না।

তিনি সরকারকে হুঁশিয়ার করে বলেন, প্রতারিত যুবকদের ক্রোধ বড় ভয়ঙ্কর হয়। আজ যারা চাকুরির জন্য হাত পেতেছে কাল সে হাত মুষ্ঠিবদ্ধ হবে। তিনি আরও বলেন, দেশে যেখানে একজন সরকার দলীয় ছাত্রনেতা ২ হাজার কোটি টাকা পাচারের দায়ে অভিযুক্ত হন সেখানে বছরে মাত্র সাড়ে চারশত কোটি টাকা হলেই ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মীদের চাকুরি স্থায়ী করা সম্ভব।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ন্যাশনাল সার্ভিস প্রকল্প কর্মীদের চাকুরি স্থায়ীকরণ এবং মেয়াদ শেষ হওয়া সকল কর্মীর পুনর্বহালসহ অন্যান্য দাবিতে অক্টোবর মাসব্যাপী জেলা ও বিভাগীয় কনভেনশন, আগামী ৪ নভেম্বর ঢাকার শাহবাগে সংহতি সমাবেশ, ১৬ নভেম্বর জেলায় জেলায় বিক্ষোভ এবং ২৮ নভেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 43
    Shares