রবিবার, জানুয়ারি ২৪

খুলনায় করোনা রোগীর সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়াল

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক:: খুলনা জেলা ও মহানগরীতে গত ১৯ দিনে এক হাজারের বেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। আর মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের। এ নিয়ে ৫ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশ রোগী ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন। এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত ৭৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা মেডিকেল কলেজের (খুমেক) আরটি-পিসিআর ল্যাবে আরও ৯৫ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। যার মধ্যে ৪৭ জনই খুলনা জেলা ও মহানগরীর। শুক্রবার তাদের নমুনা পরীক্ষার পর রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। খুমেকের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, খুমেকের আরটি-পিসিআর মেশিনে শুক্রবার মোট ২৮২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যার মধ্যে খুলনার নমুনা ছিল ১৬০টি। এদের মধ্যে মোট ৯৫ জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। যার ৪৭ জন খুলনার। এছাড়া খুমেকের ল্যাবে সাতক্ষীরার ৩৬ জন, যশোরের চারজন, বাগেরহাটের চারজন, নড়াইলের দুইজন, পিরোজপুর ও ঝিনাইদহের একজন করে আক্রান্ত হয়েছেন।

খুলনা জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূত্র জানায়, খুলনায় গত ২৬ জুলাই সন্ধ্যা পর্যন্ত ৪ হাজার রোগী শনাক্ত হয়েছিল। মৃত্যু হয়েছে ৬০ জনের। আর গত ১৯ দিনেই ১ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. শেখ সাদিয়া মনোয়ারা ঊষা জানান, শুক্রবার সকাল পর্যন্ত খুলনায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ৪ হাজার ৯৯২ জন। সন্ধ্যায় নতুন করে ৪৭ জনের করোনা শনাক্ত হওয়ায় মোট রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৩৯ জন। এদের মধ্যে মোট ৩ হাজার ৭৫০ জন সুস্থ হয়েছেন। আর মৃত্যু হয়েছে ৭৪ জনের।

তিনি আরও জানান, খুলনায় সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে মহানগরীতে ৩ হাজার ৯০৭ জন। এছাড়া কয়রা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ৬৪ জন। পাইকগাছা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১১৬ জন। ডুমুরিয়ায় উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১৫৬ জন। ফুলতলা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ২০০ জন। দিঘলিয়া উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১০৬ জন। তেরখাদা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ৫৬ জন। রূপসা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ২১০ জন। বটিয়াঘাটা উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ৪৫ জন। দাকোপ উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১৩৪ জন।


এখানে শেয়ার বোতাম