মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৩
শীর্ষ সংবাদ

খুবির তিন শিক্ষকের বরখাস্ত প্রত্যাহারের প্রতিবাদ কর্মসূচি সাময়িক স্থগিত

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 225
    Shares

খুবি প্রতিনিধি:: খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনজন শিক্ষককে গত ২৮ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অন্যায়ভাবে বরখাস্ত ও অপসারণ করার প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাদের প্রশাসনিক ভবনের সামনে গত দুই মাস যাবত চলা (৪৪ কর্ম দিবস) সমাবেশ কর্মসূচি উদ্ভূত করোনা পরিস্থিতির প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায়র কারণে সাময়িক স্থগিত করা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার, ০৬ এপ্রিল আন্দোলনরত শিক্ষার্থীর পক্ষে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা বিভাগের আসাবুর রহমান গণমাধ্যমকে প্রেরিত এক বিবৃতিতে প্রতিবাদ কর্মসূচি সাময়িক স্থগিত এর বিষয়টি জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ উপচার্য মহোদয়ের সাথে সরাসরি সাক্ষাত করাসহ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮৪৭ শিক্ষার্থীর স্বাক্ষর সম্বলিত একটি পত্র মারফত তিন শিক্ষকের অন্যায়ভাবে করা বহিষ্কার প্রত্যাহারের দাবিও জানিয়েছে। কিন্তু তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অনুপস্থিত থাকায় নিজের অপরাগতা প্রকাশ করেন। তবুও সাধারণ শিক্ষার্থীরা কর্মসূচি থামায়নি। কারণ পরিলক্ষিত হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্ত কাজ উপ-উপাচার্যের নেতৃত্বেই অব্যহত রয়েছে। এমনকি মহামান্য উচ্চ আদালত এই তিন শিক্ষককে কাজ করার অনুমতি প্রদান করলেও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদের বেতন আটকে রেখেছে এবং ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক হৈমন্তী শুুক্লা কাবেরীকে ডিসিপ্লিনের কাজে অসহযোগীতা করছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের এই আচরণে প্রতীয়মান হয়, কর্তৃপক্ষ স্বেচ্ছায় এই সিদ্ধান্তে অটল রয়েছে, এবং উপ উপাচার্য উপাচার্য না থাকলেও এই ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন। এহেন অবস্থায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা কর্মসূচি বহাল রাখতে বাধ্য হয় এবং যতোদিন পর্যন্ত না এই অন্যায় শাস্তি প্রত্যাহার করে, এই তিন শিক্ষককে চূড়ান্ত হয়রানি বন্ধ না করা হবে ততোদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের সচেতন শিক্ষার্থীরা তাদের আন্দোলন কর্মসূচি জারি রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো, এবং প্রয়োজনে কঠোরতর অবস্থানে যেতেও প্রস্তুত শিক্ষার্থীরা।

কিন্তু, উদ্ভূত করোনা পরিস্থিতির প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়সহ সকল প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখতে হচ্ছে। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জনস্বাস্থ্য রক্ষার স্বার্থে তিন শিক্ষকের বরখাস্ত প্রত্যাহারের লক্ষ্যে নিয়মিত প্রতিবাদ কর্মসূচি সাময়িক স্থগিত রাখতে বাধ্য হচ্ছে।

এমতবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে শিক্ষার্থীরা দাবি রাখছে, কর্তৃপক্ষ যেনো এই তিন শিক্ষককে হয়রানি না করে, তাদের চাকরিতে পুর্নবহাল করে এই দূর্যোগের সময় মানবিকতার পরিচয় দেয়। অন্যথায় শিক্ষার্থীরা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলেও অন্যায়ের প্রতিবাদে পুনরায় প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করতে বাধ্য হবে।

 


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 225
    Shares