বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২৪
শীর্ষ সংবাদ

খুন-সন্ত্রাস-দুর্নীতির বিরুদ্ধে উদীচী’র প্রতিবাদী সাংস্কৃতিক সমাবেশ

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক :: খুন-সন্ত্রাস ও দুর্নীতি-দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে উদীচী’র প্রতিবাদী সাংস্কৃতিক সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী।

শুক্রবার (১১ অক্টোবর) বিকাল ৪টায় রাজধানীর শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে আয়োজিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি অধ্যাপক বদিউর রহমান।

ভিন্নমত প্রকাশের অজুহাতে পিটিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র হত্যা, প্রশাসনের ছত্রছায়ায় বছরের পর বছর ক্যাসিনো চালিয়ে সাধারণ মানুষের কোটি কোটি টাকা লুট করা, প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সাথে অসম চুক্তির মাধ্যমে জাতীয় স্বার্থ ক্ষুণ্ন করাসহ নানা অপরাধ ও অনিয়মের বিরুদ্ধে এই প্রতিবাদী সাংস্কৃতিক সমাবেশ করে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী।

সমাবেশের শুরুতেই প্রতিবাদী গণসঙ্গীত পরিবেশন করেন উদীচী সঙ্গীত বিভাগের শিল্পীরা। তারা পরিবেশন করেন ”গ্রাম থেকে জেগে ওঠো, শহর থেকে জেগে ওঠো” এবং ”হুঁশিয়ার ও সাথী কিশান, মজদুর ভাইসব হুঁশিয়ার” গান দু’টি।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি শিক্ষাবিদ অধ্যাপক এ এন রাশেদা, বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক এম এম আকাশ, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক অনিক রায়, কথাসাহিত্যিক ড. জাকির তালুকদার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক জোটের নেতা আশিকুর রহমান, রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সাবেক সচিব ভূঁইয়া শফিকুল ইসলাম, সমাজ অনুশীলন কেন্দ্রের সংগঠক রঘু অভিজিৎ রায় প্রমুখ।

এছাড়া, উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় খেলাঘর আসরের সাধারণ সম্পাদক রুনু আলী, গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠক আকরামুল হক, মাহফুজা নীলা প্রমুখ। আবৃত্তি পরিবেশন করেন উদীচী’র সহ- সভাপতি বেলায়েত হোসেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, এক অদ্ভুত সময়ের ভেতর দিয়ে যাচ্ছি আমরা। পুরো দেশজুড়েই কেমন এক অস্বাভাবিক অস্থিরতা বিরাজ করছে। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা আজ চরম হুমকির মুখে। যে সহনশীলতা এ ভূখণ্ডের হাজার বছরের সংস্কৃতির অন্যতম গৌরবের অনুষঙ্গ ছিল, তা আজ যেন বিলীন হওয়ার পথে। ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল এবং তার অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতা- কর্মীদের লাগামহীন দুর্নীতি-লুণ্ঠন-অন্যায়-নির্যাতনের কারণে সাধারণ মানুষের প্রাণ আজ ওষ্ঠাগত। একটি অসাম্প্রদায়িক, সাম্যবাদী, শোষণহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার যে স্বপ্ন মুক্তিযোদ্ধারা দেখেছিলেন, তার থেকে যোজন যোজন দূরে অবস্থান করছে আমাদের দেশ। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা দূরের কথা, আইন ও বিচার সংশ্লিষ্ট সংস্থা ও বাহিনীগুলো ক্রমেই অকার্যকর হয়ে পড়ছে। শুধু রাজনৈতিক দল নয়, আমলাসহ দেশের প্রায় সব স্তরের সরকারি কর্মচারীর মধ্যেও দেখা দিয়েছে দুর্নীতির মহামারী। ব্যবসা-বাণিজ্যের খাতগুলো সিন্ডিকেটের দখলে চলে গেছে।

বক্তারা আরও বলেন, দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রায় সব হলকেই টর্চার সেলে পরিণত করেছে সরকার দলীয় ছাত্র সংগঠন। বিভিন্ন মহল থেকে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবি উঠলেও বাস্তব হচ্ছে- দেশে বর্তমানে কোন ছাত্র রাজনীতি নেই। যা চলছে তা হলো সন্ত্রাসী রাজনীতি। তাই, অবিলম্বে দেশে সুস্থ ধারার প্রকৃত ছাত্র রাজনীতি চালুর দাবি জানান বক্তারা।

দুর্বৃত্তায়ন ও লুটপাটের অর্থনীতির ফসলই হচ্ছে দুর্বৃত্ত ও সন্ত্রাসী, মাফিয়া বাহিনী। এসব কারণেই বিশ্ববিদ্যালয়সহ সমাজের সকল স্তরে মাফিয়া, সন্ত্রাসী, ক্যাসিনো ব্যবসায়ী তৈরি হচ্ছে। রাজনীতির আমূল পরিবর্তনের জন্য বাম গণতান্ত্রিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রুখে দাঁড়াতে হবে। এমন অরাজক পরিস্থিতি নিরসন করতে হলে সংস্কৃতি কর্মীদেরকেই সবার আগে এগিয়ে আসতে হবে।

একটি রাজনীতি সচেতন সাংস্কৃতিক সংগঠন হিসেবে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীও মনে করে, যে দুষ্ট চক্রের হাতে পড়েছে দেশ তা থেকে মানুষকে রক্ষা করতে হলে প্রয়োজন সাংস্কৃতিক প্রতিরোধ। সে লক্ষ্যে আগামী ১৭ অক্টোবর দেশের প্রতিটি জেলায় উদীচী ও সমমনা সংগঠনগুলো প্রতিবাদ সমাবেশ আয়োজন করার ঘোষণা দেয়া হয়। আর, ১৮ অক্টোবর রাজধানীর শাহবাগে কেন্দ্রীয়ভাবে আয়োজিত হবে এ কর্মসূচি।


এখানে শেয়ার বোতাম