মঙ্গলবার, মে ১১
শীর্ষ সংবাদ

কালুরঘাটে সেতুর দাবিতে সিপিবি’র সমাবেশ ও স্মারকলিপি

এখানে শেয়ার বোতাম

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি :: চট্টগ্রামের কালুরঘাটে দ্বিমুখী সড়ক সুবিধাসহ নতুন রেলসেতু নির্মাণের দাবিতে রেলভবন অভিমুখে বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ ও বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের মহাপরিচালক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) চট্টগ্রাম জেলা কমিটি।

রোববার (২০ অক্টোবর) এই কর্মসূচি পালন করে সিপিবি চট্টগ্রাম জেলা কমিটি।

চট্টগ্রাম রেলওয়ে সদর দপ্তরে সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, দক্ষিণ চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও পার্বত্য জেলা বান্দরবানের বিস্তীর্ণ এলাকার লক্ষ লক্ষ মানুষের চট্টগ্রাম তথা দেশের বাকী অংশের সাথে যোগাযোগের একসময়ের একমাত্র মাধ্যম ঐতিহাসিক কালুরঘাট সেতু আজ জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। চাকতাই-পশ্চিম পটিয়া পয়েন্টে একটি সেতু চালু হলেও বোয়ালখালী ও পটিয়ার বিশাল জনগোষ্ঠী ও চট্টগ্রাম-দোহাজারী রেল এখনো কালুরঘাট সেতু দিয়েই চলাচল করে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে তাল মিলিয়ে যানবাহনের সংখ্যা ও বেড়েছে কয়েকগুণ। ফলে একমুখী এই সেতু দিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়া কিছুতেই সম্ভব হচ্ছে না। ঘন্টার পর ঘন্টা মানুষ মানবেতর ভাবে অপেক্ষা করে এই সেতু পাড়ি দেবার জন্যে। প্রতিনিয়ত মারা যাচ্ছে শহরগামী অসংখ্য মুমূর্ষু রোগী, নষ্ট হচ্ছে মানুষের হাজার হাজার শ্রমঘন্টা-যা টাকার মূল্যমানে বিচার করা যায়না।

নেতৃবৃন্দ বলেন, এ অবস্থায় বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি চট্টগ্রাম জেলার উদ্যোগে কালুরঘাটে একটি নতুন দ্বিমুখী সড়ক সুবিধাসহ রেলসেতু নির্মাণের দাবিতে গণমানুষকে সাথে নিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তোলা হচ্ছে।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, আর কথার ফুলঝুরি নয়, বাগাড়ম্বরিতা নয়, কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। নচেৎ আগামীতে আরো কঠোর কর্মসূচি দেবে চট্টগ্রাম কমিউনিস্ট পার্টি।

কমরেড আবদুল নবীর সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় সদস্য কমরেড মৃনাল চৌধুরী, জেলা সাধারণ সম্পাদক অশোক সাহা, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য অধ্যাপক কানাই দাশ, মো. মছিউদদৌলা, নুরুচ্ছাফা ভূইঞা, অধ্যাপক উত্তম চৌধুরী, অমৃত বড়ুয়া, প্রমোদ বড়ুয়া, কমরেড ফরিদুল ইসলাম, সেহাবউদ্দিন সাইফু, রবিউল হোসেন, মো. আলী প্রমুখ।

বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপকের মাধ্যমে রেলমন্ত্রী ও সরকারের নিকট যে দাবিগুলো পেশ করেন:

১. অবিলম্বে কালুরঘাটে দ্বিমুখী সড়ক সুবিধাসহ নতুন রেল সেতু নির্মাণের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করুন।

২. অতিদ্রুত পুরাতন সেতুকে যান চলাচলের উপযোগী করার জন্য মেরামত ব্যবস্থা নিন।

৩. ইজারাদারের জুলুম ও সেতুতে ট্রাফিক অব্যবস্থা নিরসনে ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।

৪. চট্টগ্রাম-দোহাজারী লাইনে অতিদ্রুত কমপক্ষে ২(দুই) জোড়া ট্রেন চালুর ব্যবস্থা নিন।

দাবিগুলো আদায়ে অতিদ্রুত দৃশ্যমান উদ্যোগ পরিলক্ষিত না হলে আগামী ডিসেম্বরে কালুরঘাট সেতুতে গণ অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা করেন নেতৃবৃন্দ।

উল্লেখ্য, এর আগে একই দাবিতে গত ১৪ সেপ্টেম্বর সিপিবি’র শতশত নেতা কর্মী কালুরঘাটের উভয় পাশে সমাবেশ ও র‍্যালি করেছে।


এখানে শেয়ার বোতাম