মঙ্গলবার, মে ১১
শীর্ষ সংবাদ

করোনা সন্দেহে নারীকে রাস্তায় রেখে গেল স্বজনরা

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 350
    Shares

অধিকার ডেস্ক:: পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে শরীরে জ্বর থাকায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে স্বামী পরিত্যক্তা মানসিক ভারসম্যহীন এক নারীকে রাস্তায় রেখে গেছে স্বজনরা। তার নাম রেনিস বেগম মালা (৪২)। তিনি ওই গ্রামের মৃত নুর হোসেন হাওলাদারের মেয়ে।

রোববার রাতে রাঙ্গাবালী উপজেলার উনিশ নম্বর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। রাত থেকে সকাল পর্যন্ত খোলা আকাশের নিচে কাটান মালা।

সোমবার সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাশফাকুর রহমান এবং রাঙ্গাবালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলী আহম্মদ ওই নারীকে উদ্ধার করে খাবারসহ প্রাথমিক চিকিৎসা দেন এবং তার সৎ ভাই মো. জসিম উদ্দিন হাওলাদারের হাতে তুলে দেন।

স্বজনরা জানান, এরপর কোনো বোনের বাড়িতেই মাথা গোজার ঠাঁই হয়নি। এমনকি ভাইর ঘরেও জায়গা হয়নি থাকার। স্বজনদের ধারণা, মালার শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। তাই জ্বরে উঠেছে। এ কারণে করোনাভাইরাস আতঙ্কে তাকে ঘর থেকে বের করে দেন তারা।

এ ব্যাপারে মালার সৎ ভাই মো. জসিম উদ্দিন হাওলাদার বলেন, ‘মালা আমার ছোট বোন। ও ঢাকার উত্তর মুগদাপাড়ায় থাকত। এক সপ্তাহ আগে ঢাকা থেকে রাঙ্গাবালী এসে উনিশ নম্বর গ্রামের বোনের বাড়িতে ওঠে। মূলত স্বামীর সঙ্গে দূরত্বের পর থেকেই মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে মালা। রাঙ্গাবালীতে এসে জ্বরে পড়ে ও। করোনাভাইরাসের ভয়ে সেখান থেকে তাকে পাঠিয়ে দেয় আরেক বোনের বাড়িতে। ওই বাড়িতে যাওয়ার পর আমার ভাগ্নে করোনার ভয়ে তাকে রাস্তার ওপর রেখে চলে যায়। খবর পেয়ে আমি গিয়ে তাকে আমার বাড়িতে আনতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমি ভাড়া বাড়িতে থাকি। আমার বাড়িওয়ালা করোনাভাইরাসের ভয়ে তার বাড়িতে উঠাতে দেয়নি।’

রাঙ্গাবালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলী আহম্মদ জানান, তিনি মালার সৎ ভাই জসিম উদ্দিন হাওলাদারকে খবর দিয়ে আনেন এবং তার হাতে মালাকে তুলে দেন। মালা বর্তমানে তার হেফাজতে রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাশফাকুর রহমান জানান, ঘটনাটি শুনে মালাকে উদ্ধার করে তার খাবারের ব্যবস্থা করা এবং প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। প্রয়োজনে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে হাসপাতালে পাঠানো হবে।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 350
    Shares