মঙ্গলবার, মার্চ ২
শীর্ষ সংবাদ

কমরেড মেজবাহ প্রতিদানের প্রত্যাশা না করেই আমৃত্যু লড়াই করেছেন

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক :: অকাল প্রয়াত কমরেড মেজবাহ উদ্দিনের স্মরণসভা আজ বিকেল ৫টায় পরিবাগের সংস্কৃতি বিকাশ কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়।

কমরেড মেজবাহ উদ্দিন ছিলেন বাসদ (মার্কসবাদী) চট্টগ্রাম জেলা বর্ধিত ফোরাম এবং চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র’র কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি ফোরামের সদস্য। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তণ এ ছাত্রনেতা রাজনৈতিক জীবনে যাদের সংস্পর্শেই এসেছেন, তাদেরই মনের ভেতর গভীর ছাপ ফেলতে পেরেছেন। তাঁর স্মরণসভায় তাই এক আবেগঘন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

স্মরণসভায় বক্তব্য রাখেন কমরেড মেজবাহ উদ্দিনের বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোদ্ধা জমির উদ্দিন রাসেল, সাংস্কৃতিক আন্দোলনের সহযোদ্ধা গোবিন্দ দাস, চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ইনচাজ ইন্দ্রানী ভট্টাচার্য সোমা, বাসদ (মার্কসবাদী)’র কেন্দ্রীয় কার্যপরিচালনা কমিটির সদস্য কমরেড মানস নন্দী ও দলের সাধারণ সম্পাদক কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী।

সংগীত পরিবেশন করেন ইন্দ্রানী ভট্টাচার্য সোমা, সুস্মিতা রায় সুপ্তি ও শাওন পোদ্দার।

কমরেড মুবিনুল হায়দার চৌধুরী বলেন, এই সময়ে এই দেশে কি রকম কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে আমরা যাচ্ছি। লুটপাট, মদ, জুয়া, পর্নোগ্রাফি, খুন ইত্যাদির আক্রমণে যুবসমাজ দিশেহারা। একটা বিরাট অংশের ছাত্র-যুবক এর মধ্যেই ডুবে আছে। এরই মধ্যে কমরেড মেজবাহর মতো চরিত্র হওয়া একটা সোজা ব্যাপার নয়। মার্কসবাদ- লেনিনবাদ-কমরেড শিবদাস ঘোষের চিন্তার ভিত্তিতে সে তার জীবনকে পরিচালিত করতে চেয়েছে বলেই এমন গুণাবলী অর্জন করা ও তাকে রক্ষা করা তাঁর পক্ষে সম্ভব হয়েছে। সে আমৃত্যু দলের বিকাশের জন্য লড়াই করেছে, কোন প্রতিদানের প্রত্যাশা না করেই করেছে। এমন কমরেডের অকাল মৃত্যু মেনে নেয়া যায় না, বিপ্লবী রাজনীতিতে তাঁর অনেককিছু দেবার ছিল।

এই মহান আদর্শই তাঁর চরিত্রে এমন সৌন্দর্য্য সৃষ্টি করেছে , তাঁর চরিত্র থেকে শিক্ষা নিয়ে তাঁর দেখানো পথ ধরে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।


এখানে শেয়ার বোতাম