মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৪

এম.সি কলেজে ধর্ষণের ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি ছাত্র ফ্রন্টের প্রাক্তন নেতাদের

এখানে শেয়ার বোতাম
  • 158
    Shares

অধিকার ডেস্ক:: ঐতিহ্যবাহী এম.সি কলেজের ছাত্রাবাসে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মী কতৃক গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের এম.সি কলেজ শাখার প্রাক্তন নেতা-কর্মীরা।

আজ এক যুক্ত বিবৃতিতে এম.সি কলেজ শাখা ছাত্র ফ্রন্টের প্রাক্তন নেতা-কর্মীরা বলেন, ‘সিলেটের ঐতিহ্যবাহী এম.সি কলেজের ছাত্রাবাসে সরকার দলীয় ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মী কতৃক স্বামীকে বেধে রেখে গৃহবধূকে পালাক্রমে ধর্ষণের ঘটনা দেশের সকল বিবেকবান মানুষকে স্তম্ভিত করেছে। ইতিপূর্বে এই সংগঠনের নেতা-কর্মীরা এম.সি কলেজের শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহী ছাত্রাবাস পুড়িয়ে দিলেও এর সঠিক বিচারের ব্যবস্থা সরকার করেনি। সরকারের আশ্রয়ে প্রশ্রয়েই ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা এতো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এদের কাছে নারী-শিশু-বৃদ্ধ কেউই নিরাপদ নেই।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, এই সরকারের অধীনে নিরাপদ কেবল সরকার দলীয় সন্ত্রাসী-ধর্ষক-লুটেরা আর সরকার দলীয় কতিপয় দালাল। সাধারণ জনগণের উপর জগদ্দল পাথরের মত চেপে বসা এই ফেসিবাদী সরকার ভোট ডাকাতির লাঠিয়াল হিসাবে ছাত্রলীগ-যুবলীগ-পুলিশ কে ব্যবহার করে আর বিনিময়ে সমস্ত অন্যায়ের লাইসেন্স দিয়ে দেশকে একটা ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের অভয়ারন্যে পরিনত করেছে। দিনের পর দিন সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা নানা ধরনের অপরাধ করলেও তাদের কোন বিচার হয়না। এই বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণেই আজকে এম.সি কলেজে এই নেক্কারজনক ঘটনা সংঘটিত হতে পেরেছে।’

নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে এই গণধর্ষণের সাথে জড়িত সকল ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের এবং তাদের গডফাদারদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।

বিবৃতিদাতা নেতৃবৃন্দ হলেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট এর প্রাক্তন সভাপতি আব্দুল কালাম, সুশান্ত সিনহা সুমন,প্রাক্তন সদস্য রয়েল আদিত্য, প্রাক্তন সভাপতি এডভোকেট উজ্জ্বল রায়, প্রাক্তন অর্থ সম্পাদক এডভোকেট রনেন সরকার রনি, প্রাক্তন সাংগঠনিক সম্পাদক নিরঞ্জন সরকার অপু, প্রাক্তন সদস্য বিজন বিহারি তালুকদার, প্রাক্তন প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক রাজীব পাল,  প্রাক্তন  সভাপতি উৎপল রায় অপি, সাজু সরকার, প্রাক্তন সদস্য অতনু পাল রাজ, নারায়ণ চন্দ্র পাল রানা, বিপুল বদ্য, প্রাক্তন সভাপতি শিব্বির আহমদ, প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক ফজলে রহমান চৌধুরী ফারহান, প্রাক্তন সংগঠক অনিক চন্দ প্রমুখ।


এখানে শেয়ার বোতাম
  • 158
    Shares