মঙ্গলবার, মে ১৮
শীর্ষ সংবাদ

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে চুয়েটের দুই সাফল্য

এখানে শেয়ার বোতাম

অধিকার ডেস্ক:: আমেরিকান সোসাইটি অব মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারর্স (এএসএমই) কর্তৃক আয়োজিত এএসএমই-ই-ফেস্ট ডিজিটাল ২০২১ পরিক্রমায় চুয়েট থেকে অংশগ্রহণকৃত দুটি টিমের একটি এনভায়রনমেন্টাল ডিভিশন কম্পিটিশনে আন্তর্জাতিকভাবে চ্যাম্পিয়ন এবং অপরটি ডিজাইন সাবমিশন চ্যালেঞ্জে ২য় স্থান অধিকার করার গৌরব অর্জন করেছে।

আমেরিকান সোসাইটি অব মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার্স( এ.এস.এম.ই) প্রকৌশলে বিশ্বের অন্যতম মান নির্ধারণকারী এবং পেশাদার সংস্থা।

এ.এস.এম.ই প্রতি বছর আয়োজন করে থাকে বিশ্বের অন্যতম সম্মানজনক ইভেন্ট এ.এস.এম.ই ই-ফেস্ট। প্রতিবছর এই ইভেন্টটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠিত হলেও মহামারীর কারণে গতবারের মতো এই ইভেন্টটি ২২-২৪ এপ্রিল ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয়।

চুয়েটের যন্ত্রকৌশল বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মোঃ মাহাদী হাসান ও ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী মোঃ ফাহিম হোসাইন ‘এনভি-চুয়েট’ দলের সদস্য হিসেবে চুয়েটের প্রতিনিধিত্ব করে চ্যাম্পিয়ন হন। ই-ফেস্টের এনভায়রনমেন্টাল সিস্টেম ডিভিশন কম্পিটিশনের অংশগ্রহণকারী হিসেবে তারা দেখিয়েছেন কিভাবে ঢাকা শহরের বর্জ্যগুলোর সঠিক ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে তা থেকে শক্তি উৎপন্ন করা যায়। প্রোগ্রামেবল লজিক কন্ট্রোলার (পিএলসি) দ্বারা প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হয় এবং প্রতিযোগিরা আশা করেন এর মাধ্যমে ঢাকা শহরের মতো শহরগুলোকেও সবুজ শহরে রুপান্তর করা সম্ভব।

অপরদিকে যন্ত্রকৌশল বিভাগের চতুর্থবর্ষের শিক্ষার্থী তৌকির আহমেদ চৌধুরী, আহমেদ আবদুল্লাহ মুজাহিদ এবং মোঃ বায়েজিদ আহমেদ এর আরেকটি দল চুয়েটের প্রতিনিধিত্ব করে এবং ডিজাইন সাবমিশন চ্যালেঞ্জে ২য় স্থান অর্জন করে। এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের দেশগুলো- বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, সিংগাপুর, ইন্দোনেশিয়া সহ আরও অনেক দেশের শতাধিক প্রতিযোগী দল এতে অংশগ্রহণ করে।

প্রতিযোগীরা একটি স্মার্ট বাকেট উদ্ভাবন করেন যেটি নবায়নযোগ্য শক্তির উৎসকে কাজে লাগিয়ে পানির অপচয় রোধ করে স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে গাছের পরিচর্যা ও সেচ প্রদান করতে পারে। তারা দাবি করেন তাদের উদ্ভাবিত পদ্ধতিটি প্রয়োগে পানির অপচয় কমানোসহ সবুজ শহর গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

উল্লেখ্য, উক্ত দুই বিজয়ী দলকে সংবর্ধনা জানান উপস্থিত বিচারকরা এবং ফলাফল ঘোষণা করেন ই-ফেস্ট স্টিয়ারিং কমিটির চেয়ার, টুইশান্স মেহতা।

তাদের এই সাফল্যে চুয়েটের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিবাদন জানাচ্ছেন।

এছাড়া বিজয়ীদের অভিবাদন জানিয়ে এএসএমই চুয়েট স্টুডেন্ট চ্যাপ্টারের সভাপতি মুসতাহসিন রিয়াসাদ বলেন, “ই-ফেস্টের মতো আন্তর্জাতিক একটি প্রতিযোগিতায় চুয়েট শিক্ষার্থীদের ঈর্ষণীয় সাফল্যে আমরা গর্বিত ও অভিভূত। আমরা আশা করি এভাবেই সমগ্র বিশ্বে চুয়েটের মেধাবী শিক্ষার্থীরা তাদের মেধা ও সৃজনশীলতার পরিচয় রেখে যাবে।”


এখানে শেয়ার বোতাম